Home / এক্সক্লুসিভ / বৈবাহিক জীবনে প্রতি রাতেই ধর্ষণের শিকার আমি : বাঁধন

বৈবাহিক জীবনে প্রতি রাতেই ধর্ষণের শিকার আমি : বাঁধন

অভিনেত্রী আজমেরী হক বাঁধন এপার-ওপার দুই বাংলাতেই এখন জনপ্রিয়। ‘রেহানা মরিয়ম নূর’, ‘খুফিয়া’ ও ‘রবীন্দ্রনাথ এখানে কখনো খেতে আসেননি’—সিনেমা ও সিরিজে তার অভিনয়ে মুগ্ধ দর্শক। পর্দায় তার ঝলকানি, অভিনয় সবই দুর্দান্ত। এসব তো গেল পর্দার জীবন। কিন্তু কয়েক বছর আগে ব্যক্তিজীবন মোটেও এমন ছিল না।

অভিনেত্রী বাঁধন বিয়ের পরে শ্বশুরবাড়িতে অনেক অত্যাচারের শিকার হয়েছেন। সেই সব দিনগুলো ছিল জীবনের বিভীষিকাময় অধ্যায়। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম আনন্দবাজার পত্রিকাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে শ্বশুরবাড়ির নির্যাতনের কথা জানিয়েছেন তিনি। বিয়ের পরে জোর করে তার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের চেষ্টা করেন অভিনেত্রীর স্বামী।

বাঁধন জানিয়েছেন কতটা গার্হস্থ্য হিংসার শিকার হয়েছিলেন। বলেন, আমার সাবেক শ্বশুরবাড়ির মানুষ পড়াশোনা করতে দিত না। বন্ধুদের সঙ্গে যোগাযোগ ছিন্ন করে দিতে বাধ্য করে আমাকে। সবই মেনে নিয়েছিলাম আমি। ভেবেছিলাম এভাবেই হয়তো থাকতে হয়।

তিনি বলেন, আমাকে অনেকেই উপদেশ দিয়েছিলেন এসব সমস্যার সমাধান হলো সন্তান। কিন্তু কাউকে তা বোঝাতে পারিনি। আমি বৈবাহিক ধর্ষণের শিকার। প্রসঙ্গত, বাঁধন অভিনীত সিনেমা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসেব মনোনীত হওয়ার পর থেকে আলোচনায় তিনি। বর্তমানে সব অশান্তি কাটিয়ে মেয়েকে নিয়ে সুখের সংসার এই অভিনেত্রীর।

বাঁধন ২০১০ সালের ৮ সেপ্টেম্বর ব্যবসায়ী মাশরুর সিদ্দিকীর সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। পারিবারিকভাবে বিয়ে হয় তাদের। বিয়ের পরে সংসার নিয়ে ব্যস্ত থাকায় কিছুদিন অভিনয়ে দেখা যায়নি তাকে। কিন্তু সংসার জীবন সুখের না হওয়ায় ২০১৪ সালের ১০ আগস্ট বিচ্ছেদের আবেদন করেন অভিনেত্রী। ওই বছরের ২৬ নভেম্বর আনুষ্ঠানিক বিচ্ছেদ হয় তাদের।