Home / দাম্পত্য জীবন / কীভাবে একজন ধর্ষিতা নারীর ডাক্তারি পরীক্ষা করা হয় (দেখুন ভিডিওতে)

কীভাবে একজন ধর্ষিতা নারীর ডাক্তারি পরীক্ষা করা হয় (দেখুন ভিডিওতে)

আপনার কি ধারণা ধর্ষণই একটি মেয়ের উপর ঘটে যাওয়া নিকৃষ্টতম সম্ভাব্য ঘটনা। তাহলে জেনে রাখুন, ভারতে কোনও কোনও সময়ে ধর্ষণের চেয়েও খারাপ কিছু ঘটতে পারে একটি মেয়ের সঙ্গে। যখন কোনও মেয়ে ধর্ষণের অভিযোগ নিয়ে পুলিশের দ্বারস্থ হন, তখন সত্যিই তিনিই ধর্ষিতা হয়েছেন কি না তা জানার জন্য চলে তাঁর ডাক্তারি পরীক্ষা।

সেই পরীক্ষার সময়ে যে ধরনের লাঞ্ছনার সম্মুখীন হতে মেয়েটিকে, কখনও কখনও তা হয় তাঁর মূল লাঞ্ছনার ঘটনার চেয়েও বেশি লজ্জাজনক। কীভাবে হয় একজন ধর্ষিতার ডাক্তারি পরীক্ষা?

শারীরিক মিলনের সময় এই কাজগুলি করুন বাড়তি আমেজ পাবে সঙ্গী! দেখুন ভিডিওতে

১. ডাক্তারি পরীক্ষার সময়ে একটি একটি করে রোগিনীকে তার সমস্ত পোশাক খুলে নিতে হয় একজন ডাক্তারের উপস্থিতিতে। একটি কাগজের টুকরোর উপরে দাঁড়িয়ে এই কাজ করতে হয়, যাতে পোশাক খোলার সময়ে মেয়েটির শরীর থেকে নীচে খসে পড়া যে কোনও কিছু বা সমস্ত কিছু ল্যাবরেটরিতে পরীক্ষার জন্য সংগ্রহ করা যায়।

ডাক্তাররা হাসপাতালে চিকিৎসার নামে এসব কি করছে? প্লীজ ভিডিওটি দেখে সাবধান হন

২. সম্পূর্ণ নগ্ন অবস্থায় আল্ট্রভায়োলেট আলোর সাহায্যে মেয়েটির শরীর পরীক্ষা করে দেখা হয় তার শরীরের কোনও অংশে বীর্যের কোনও চিহ্ন রয়েছে কি না। ৩. শরীরে তৈরি হওয়া কোনও কাটা, ছড়া বা ছাল উঠে যাওয়ার মতো ক্ষতস্থান- যেগুলি ধস্তাধস্তির ফলে তৈরি হতে পারে,

ভিডিওটি দেখুনঃ

৫. মেয়েটির শরীরের কোনও অংশে কতটা চাপ পড়েছে তার উপর নির্ভর করে কী ধরনের ক্ষত তৈরি হবে সেই অংশে। যদি মেয়েটির পিঠে বা কোমরে ছড়ে যাওয়ার দাগ থাকে, তাহলে বুঝতে হবে, মেয়েটিকে কোনও পাথুরে বা শক্ত জমির উপর ফেলে নির্যাতন চালানো হয়েছে। স্তনবৃন্তে কামড় বা অন্য কোনও আঘাতের চিহ্নও পাওয়া যেতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *