[X]
Home / ফিটনেস / মেদ কমাতে ১০০% কার্যকরী ডায়েট প্ল্যান | ৪ বেলার পরিমিত খাবারে পান স্লিম ফিগার!

মেদ কমাতে ১০০% কার্যকরী ডায়েট প্ল্যান | ৪ বেলার পরিমিত খাবারে পান স্লিম ফিগার!

আজকাল সবাই স্বাস্থ্য সচেতন। বাড়তি মেদ ঝরানোর যুদ্ধে সবাই জয়ী হওয়ার জন্য উঠে পড়ে লেগে গেছে। কেউ সফল হচ্ছেন আর কেউ অস্বাস্থ্যকর ডায়েট প্ল্যানের কারণে অসুস্থদের খাতায় নাম লেখাচ্ছেন। চটজলদি ওজন কমানোর উপায়গুলো পরিহার করে স্বাস্থ্যকর উপায়ে মেদ কমাতে ডায়েট প্ল্যান ফলো করে চিরস্থায়ীভাবে ওজন কমানোর পথ বেঁছে নিতে হবে।



রাতারাতি ওজন কমালে সেটা স্থায়ী তো হয়ই না, উল্টো পরিপাকতন্ত্রের বিভিন্ন সমস্যা দেখা দেয়। আমরা সবাই জানি ওজন কমানোর সবচেয়ে কার্যকরী উপায় হচ্ছে পরিমিত খাওয়া আর ব্যায়াম করা। কম ক্যালোরিযুক্ত প্লেট ভর্তি পুষ্টিকর খাবার যেমন পেট ভরাবে তেমনি ওজন কমাতে কোন ব্যাঘাত ঘটাবে না। একজন প্রাপ্ত বয়স্ক নারীর দিনে ২০০০ ক্যালোরি প্রয়োজন। আজ আমার মূল উদ্দেশ্য হল আদর্শ উপায়ে আপনাদেরকে আপনাদের লক্ষে পৌছে দেয়া। সবার সুবিধার্থে এমনই একটা ডায়েট মেন্যু দেয়া হলো। মেদ কমাতে ডায়েট প্ল্যান ৪ বেলার জন্য



সকাল
২টি হাতে বানানো রুটি, কুসুম ছাড়া ডিম সেদ্ধ/পানি পোচ, এক গ্লাস লো–ফ্যাট মিল্ক অথবা টক দই, কমলা অথবা সাইট্রিক অ্যাসিডযুক্ত ফল। রুটির বদলে এক বাটি কর্ণফ্লেক্স অথবা ওটস খেতে পারেন। নাস্তা শুরু করার আগে খালি পেটে হালকা গরম পানিতে একটি লেবু চিপে এক চামচ মধু মিশিয়ে খেতে পারেন। এতে আপনার ত্বকও ভালো থাকবে আর শরীরের মেদ ঝরবে দ্রুত। আপনার জন্য গুরুত্বপূর্ণ তথ্য হলো ঠাণ্ডা পানিতে মধু খাবেন না, তখন এটা স্যাচুরেটেড ফ্যাট হিসেবে আপনার শরীরে জমা হবে।



দুপুর
এক কাপ ভাত, দুই পিস মাছ/মুরগির মাংস, এক বাটি ডাল, আলু ছাড়া তরকারি আর শসা, টমেটো, গাজর দিয়ে এক বাটি সালাদ যত ইচ্ছা তত খেতে পারেন। শুধু যে এইগুলো দিয়েই সালাদ বানাতে হবে তা কিন্তু নয়। আপনি আপনার পছন্দের উপকরণগুলো বেঁছে নিন। শুধু সালাদ ড্রেসিং ব্যবহার করা পরিহার করতে হবে।



বিকেল
মুড়ি, পপকর্ন, ছাতু, টোস্ট বিস্কুট, রঙ চা অথবা দুধ চা খেতে পারেন। তবে হালকা চিনি দিবেন। দরকার হলে চিনি ছাড়া চা খাবেন কিন্তু সুইটনার খাওয়ার অভ্যাস করবেন না। এইটা স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী নয়।



রাত
এক বাটি ঘরে বানানো মুরগীর অথবা সবজীর সুপ, এক বাটি সালাদ, এক গ্লাস লো- ফ্যাট মিল্ক/দই, একটা আপেল। যদি সুপ খেতে ইচ্ছা না করে তাহলে আমরা সাধারণত যে চাইনীজ ভেজিটেবল বানাই সেটা এক বাটি খাওয়া যেতে পারে।



আরো কিছু বিষয় খেয়াল রাখতে হবে সেগুলো হল-

১. লবণ কম খেতে হবে। লবণ শরীরে পানি ধরে রাখে যার ফলে শরীরে পানি জমে শরীর ফুলে যায়। ২. পেট কখনো খালি রাখবেন না তাহলে গ্যাস্ট্রিকের উপসর্গ দেখা দিতে পারে। ক্ষুধা লাগলেই সালাদ অথবা ফল খেয়ে পেট ভরে নিবেন। ৩. প্রতিদিন অন্ততপক্ষে ১৫ মিনিট ব্যায়াম করুন।



৪. রাতের খাবার অবশ্যই ৮টার মধ্যে খেয়ে নিবেন। ৫. প্রচুর পরিমানে পানি পান করার অভ্যাস করুন। জুস বা সোডা জাতীয় খাবারে চিনির পরিমাণ বেশি থাকে। ৬. ডিপ ফ্রাইড খাবার পরিহার করুন।

৭. ৭-৮ ঘণ্টা ঘুমাবেন। পর্যাপ্ত ঘুম পাকস্থলীর পরিপাকের ক্ষমতা বাড়িয়ে দিবে। ৮. কোন বেলার খাবার স্কিপ করবেন না। তাহলে দেখা যায় পরের বেলায় বেশি খাওয়া হয়েই যায়। ৯. হাস্যকর হলেও সত্যি যে সাম্প্রতিক এক গবেষণায় দেখা গিয়েছে নীল রঙ বেশি খাওয়ার ইচ্ছে কমিয়ে দেয়। তাই আজই আপনার খাবার প্লেট, টেবিল ক্লথের রঙ বদলে পরীক্ষা করে দেখুন গবেষণার ফলাফল সত্যি কিনা। এই ছিল মেদ কমাতে ডায়েট প্ল্যান নিয়ে জরুরী কিছু তথ্য। আশা করি উপকৃত হবেন।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *