[X]
Home / ত্বকের যত্ন / ফর্সা উজ্জ্বল ত্বক পেতে রইল ১০ টি প্রাকৃতিক টিপস

ফর্সা উজ্জ্বল ত্বক পেতে রইল ১০ টি প্রাকৃতিক টিপস

সুন্দর ও উজ্জ্বল ত্বক আপনার সৌন্দর্য্যকে বাড়িয়ে তোলে। কিন্তু আপনার মুখের কালো ছোপ, ব্রণ, বলিরেখা, অবাঞ্ছিত লোম, ত্বকের রুক্ষতা বা অতিরিক্ত তৈলাক্ত ত্বক আপনার এই উজ্জ্বল ও সুন্দর ত্বকের পথে বাধা হয়ে দাঁড়ায়। এই বাধা দূর করতে আমরা আজ নিয়ে হাজির ১০ টি প্রাকৃতিক উপাদান যা এই সব রকম সমস্যা দূর করতে ত্বকের রামবাণ হয়ে দাঁড়াব। এই প্রাকৃতিক উপাদানগুলি আপনার ত্বকের যে কোনো ধরনের সমস্যা নিমেষে দূর করে আপনার সৌন্দর্য্যকে বাড়িয়ে তুলবে। চটপট পড়ে ফেলুন আজকের লেখা এবং জেনে নিন এই উপাদানগুলি কিভাবে ব্যবহার করবেন।



১. কেশর – কেশর আপনার ত্বক’কে উজ্জ্বল করার সবথেকে সহজ ও কার্যকরী উপাদান। ত্বকের কালো ছোপ দূর করতে বা ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়িয়ে তুলতে যে কোনো বয়সের মহিলারা এই উপাদান টি ব্যবহার করতে পারেন।
কেশর প্যাক উপাদানঃ কেশর, অলিভ অয়েল ২ চামচ, কাঁচা দুধ ২ চামচ। পদ্ধতিঃ একটি পাত্রে অল্প জল নিয়ে তাতে সামান্য পরিমানে কেশর ভিজিয়ে রেখে দিন| জলের রং হলুদ হয়ে গেলে ওতে পরিমান মত কাঁচা দুধ ও অলিভ অয়েল মিশিয়ে নিন| এবার মিশ্রণ টি মুখে মেখে ১৫ থেকে ২০ মিনিট রেখে ঠান্ডা জলে মুখ ধুয়ে ফেলুন| সপ্তাহে ২-৩ দিন এর ব্যবহার ১ মাসের মধ্যেই আপনার ত্বকের জেল্লা বাড়িয়ে তুলবে|



২. দুধ – ত্বক কে গভীর ভাবে পরিষ্কার করতে সাহায্য করে। এছাড়া ত্বক নমনীয় রাখতেও এই প্রাকৃতিক উপাদান অত্যন্ত কার্যকরী| পদ্ধতিঃ কাঁচা দুধ তুলোয় ভিজিয়ে নিয়ে রাতে শুতে যাবার আগে ত্বক পরিষ্কার করুন। এটি নিয়মিত করলে আপনার ত্বক ভেতর থেকে পরিষ্কার হবে এবং ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে।

৩. ঘৃতকুমারী বা অ্যালোভেরা – ঘৃতকুমারী বা অ্যালোভেরা আমাদের ত্বকের জন্য অত্যন্ত উপকারী| ত্বকের যে কোনো রকম ইনফেকশন বা স্কিন এলার্জি দূর করতে অ্যালোভেরা ব্যবহার করা যেতে পারে। ফেসপ্যাক উপাদানঃ অ্যালোভেরা জেল ২ চামচ, হলুদ, মধু। পদ্ধতিঃ সামান্য হলুদ গুঁড়ো, ২ চামচ মধু ও ২ চামচ অ্যালোভেরা জেল মিশিয়ে নিন ভালো করে| এবার মুখে, গলায় ও ঘাড়ে ভালো করে লাগিয়ে ২০ মিনিট পর ঠান্ডা জলে ধুয়ে ফেলুন| সপ্তাহে একবার করে এই ফেসপ্যাক ব্যবহার করুন।



৪. মুলতানি মাটি – বহু প্রাচীন কাল থেকেই এই উপাদান আমাদের রূপচর্চার উপাদান হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে|

ফেসপ্যাক উপাদানঃ মুলতানি মাটি ১ চামচ, চন্দন পাউডার ১ চামচ বা চন্দন বাটা ও গোলাপ জল। পদ্ধতিঃ মুলতানি মাটি, চন্দন পাউডার বা চন্দন বাটা ও গোলাপ জল মিশিয়ে পেস্ট মত বানিয়ে নিন| মুখে মেখে পুরোপুরি শুকিয়ে যাওয়া অবধি অপেক্ষা করুন| এবার ঠান্ডা জল দিয়ে ভালো করে মুখ ধুয়ে ফেলুন| সপ্তাহে ২-৩ দিন এই ফেসপ্যাক আপনার স্কিনটোন হালকা করতে সাহায্য করে। এছাড়া ত্বকে কালো দাগ বা ছোপ থাকলে সেগুলি দূর করতে সাহায্য করে।



৫. চন্দন – চন্দন আমাদের ত্বকের জন্য অত্যন্ত উপকারী আরেকটি প্রাকৃতিক উপাদান| এর প্রয়োগ আমাদের ত্বকে ব্রণ, ফুসকুড়ি বা কোনো রকম স্কিন এলার্জি থাকলে তা সহজেই দূর করতে সাহায্য করে ।এছাড়া সানট্যান‘কেও দূর করতে সাহায্য করে।
ফেসপ্যাক উপাদানঃ চন্দন পাউডার ১ চামচ, বেসন ১ চামচ, হলুদ গুঁড়ো বা কাঁচা হলুদ বাটা সামান্য, ল্যাভেন্ডার তেল ১ চামচ ও গোলাপ জল। পদ্ধতিঃ চন্দন পাউডার, বেসন, হলুদ, ল্যাভেন্ডার অয়েল ও গোলাপ জল পরিমান মত মিশিয়ে একটি ফেসপ্যাক তৈরী করুন। মুখে মেখে ৩০ মিনিট অপেক্ষা করুন, তারপর ঠান্ডা জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলু… সপ্তাহে ১-২ দিন ব্যবহার করলে ত্বকের যেকোনো সমস্যা দূর হবে।



৬. মধু- মধু আমাদের ত্বকে নমনীয়তা দান করে ও ত্বকের সতেজতা বৃদ্ধি করে।
ফেসপ্যাক উপাদানঃ মধু ২ বড়ো চামচ, লেবুর রস ৪ চামচ। পদ্ধতিঃ মধু ও লেবুর রস পরিমান মত নিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। ভালো করে মিশ্রণ টি মুখে মেখে ১৫-২০ মিনিট পর ঠান্ডা জলে মুখ ধুয়ে ফেলুন| এটি অ্যান্টি অক্সিডেন্ট ফেসপ্যাক| এর দ্বারা ত্বকের অশুদ্ধি গুলি দূর হয় ও ত্বক নমনীয় হয়ে ওঠে। ভালো ফল পেতে সপ্তাহে ২-৩ দিন ব্যবহার করুন।



৭. তুলসী পাতা – তুলসী পাতা ত্বকের জন্য অ্যান্টিসেপ্টিক হিসেবে কাজ করে| যে কোন রকম এলার্জি বা পোকামাকড়ের কামড়ের ফলে ত্বকে কোনো সমস্যা দেখা দিলে তুলসীপাতার ফেসপ্যাক অত্যন্ত উপকারী| এছাড়া ত্বকের নমনীয়তা বাড়িয়ে তুলতেও এই উপাদান অত্যন্ত কার্যকরী।
ফেসপ্যাক উপাদানঃ তুলসীপাতা ১০-১২, নিমপাতা ৬-৮, ১/২ চামচ চন্দন পাউডার এবং গোলাপ জল। পদ্ধতিঃ তুলসীপাতা, নিমপাতা মিক্সিতে ভালো করে বেটে নিন। এর সাথে চন্দন পাউডার ও সামান্য গোলাপ জল মিশিয়ে ফেসপ্যাক তৈরী করুন| মুখে ভালো করে লাগিয়ে নিয়ে ৩০ মিনিট পর ঠান্ডা জলে ধুয়ে ফেলুন| এতে আপনার ত্বক মসৃন হয়ে উঠবে এবং ত্বকে দাগ ছোপ, বা ব্রণ থাকলে তা দূর হবে। সপ্তাহে ১ -২ দিন ব্যবহার করলে ভালো।



৮. হলুদ – ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করতে ও ত্বক ভেতর থেকে পরিষ্কার করতে হলুদ অত্যন্ত কার্যকরী। ফেসপ্যাক উপাদান হলুদ বাটা ১ চামচ, চন্দন পাউডার ১ চামচ, মধু ২ চামচ। পদ্ধতিঃ হলুদ বাটা, চন্দন ও মধু মিশিয়ে মিশ্রণটি মুখে মেখে ১০-১৫ মিনিট পর মুখ ধুয়ে ফেলুন| এতে ত্বক পরিষ্কার ও উজ্জ্বল হয়ে উঠবে। এই মিশ্রণ টি আপনি প্রতিদিন ব্যবহার করতে পারেন

৯. বাদাম তেল – বাদাম তেল আমাদের ত্বককে পুষ্টি দান করে, ফলে ত্বক উজ্জ্বল মসৃন ও নমনীয় হয়ে ওঠে। ফেসপ্যাক উপাদান: ১ টি পাকা কলা, ২ চামচ বাদাম তেল। পদ্ধতিঃ ১ টি পাকা কলা চটকে নিয়ে তাতে বাদাম তেল মিশিয়ে পেস্ট মত বানিয়ে মুখে মেখে ২০ মিনিট রেখে দিন| এরপর জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন| সপ্তাহে ২ দিন ব্যবহার করলে আপনি নিজেই পার্থক্য বুঝতে পারবেন।



১০. গাজর, নারকেল ও শশাঃ আপনার ত্বকের যে কোনো ধরনের সমস্যা থাকলে তা দূর করে ত্বক উজ্জ্বল করে তোলে এই তিনটি উপাদান। পদ্ধতিঃ নারকেল ভালো করে ছুলে টুকরো করে কেটে পেস্ট বনিয়ে নিন। তার সাথে ২ টুকরো গাজর ও ২ টুকরো শশা মিক্সিতে বেটে নিয়ে মিশিয়ে মুখে মাখুন। এতে আপনার ত্বক জেল্লাদার হয়ে উঠবে।

এই ফেস প্যাক গুলি যেহেতু প্রাকৃতিক উপাদান সম্পন্ন তাই যেকোনো বয়সের মহিলা বা যেন রকম ত্বকের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। তবে সব গুলি একসাথে ব্যবহার করা যেহেতু সম্ভব হয়না তাই আপনার পছন্দের যেকোনো ২-৩ টি প্রাকৃতিক উপাদান ও তার ফেস প্যাকটি বেছে নিন ও সুন্দর ত্বক পেয়ে যান কিছুদিনের মধ্যেই|


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *