Home / সাজসজ্জা / ত্বকের দাগ ঢাকতে ও ত্বকে ফাউন্ডেশন ঠিক রাখতে যা করবেন জেনে নিন!

ত্বকের দাগ ঢাকতে ও ত্বকে ফাউন্ডেশন ঠিক রাখতে যা করবেন জেনে নিন!

শীত প্রায় চলেই গেছে, বসন্ত চলতেছে। এখন আবহাওয়া ধীরে ধীরে উষ্ণ হয়ে উঠছে। কোথাও বেড়াতে গেলে বা পার্টিতে গেলে ফাউন্ডেশন ব্যবহারের কিছুক্ষণ পরেই দেখা যাচ্ছে তা ঘামিয়ে গলে যাচ্ছে বা তেলতেলে হয়ে যাচ্ছে। এই সময়ে দীর্ঘক্ষণ ফাউন্ডেশন ঠিক রাখার আছে কিছু উপায়। জেনে নিন উপায়গুলো।

ময়েশ্চারাইজার: ত্বকে যে কোনো কিছু ব্যবহারের আগেই ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করা উচিত। তবে যাদের ত্বক তৈলাক্ত তারা এই সময়ে অয়েল ফ্রি ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করুন। আর যাদের ত্বক শুষ্ক তাদের ত্বক এই সময়টাতে রুক্ষ হয়ে থাকে। তাই ভালো ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করে ফাউন্ডেশন ব্যবহার করতে হবে।

প্রাইমার: মেকআপ ঠিকমতো বসাতে প্রাইমার ব্যবহার করা জরুরি। প্রাইমার ব্যবহার করলে বেজ মেকআপ খুব মসৃণ হয়। এছাড়াও ভালো প্রাইমার ফাউন্ডেশন ধরে রাখতে সাহায্য করে।

বিউটি ব্লেন্ডার: ফাউন্ডেশন মেশানোর জন্য হাত ব্যবহার না করে বিউটি ব্লেন্ডার অথবা ভালো ব্রাশ ব্যবহার করুন। এতে ত্বকে দীর্ঘ সময় পর্যন্ত ফাউন্ডেশন ঠিক থাকবে এবং ভালো ভাবে মিশবে।

পাউডার: লিকুইড ফাউন্ডেশন ব্যবহার করলে অবশ্যই ডাস্ট পাউডার ব্যবহার করতে হবে মেকআপ সেট করার জন্য। সারাদিন ফাউন্ডেশন ঠিক রাখতে চাইতে ত্বকে ভালো করে মিশিয়েই লুজ পাউডার ব্যবহার করুন। এতে ফাউন্ডেশন তৈলাক্ত হবেনা কিংবা ঘেমে নষ্ট হবে না।

আরো পড়ুন, শারীরিক সমস্যা মেটাতে সক্ষম বাসি ভাত –

ভাত আমাদের প্রধান খাদ্য। তবে ভাত বাসি হলেই খাওয়ার ইচ্ছে হারান বেশিরভাগ মানুষ ৷ রাতের বাসি ভাতের বেশিরভাগ সময়ই ঠাঁই হয় ডাস্টবিন বা রাস্তার কুকুর বিড়ালের পাতে৷ কিন্তু বাসি ভাতের মধ্যে এমন কিছু গুণ রয়েছে যা বহু শারীরিক সমস্যা মেটাতে সক্ষম।ব্রেকফার্স্টের টেবিলে আপন করে নিন বাসি ভাতকে ৷ কারণ পুষ্টিবিদরা জানাচ্ছেন, ভাতের মতো বাসি ভাতেও রয়েছে অনেক খাদ্য গুণ। তাদের মতে বাসি ভাত খেলে অনেকসময় মিটে যায় আলসারের সমস্যা। সপ্তাহে তিন দিন বাসি ভাত খেলেই মুক্তি পেতে পারেন আলসারের মতো পেটের সমস্যা থেকে। আসলে বাসি ভাতে থাকা খাদ্যগুণ পেটের ঘা ও জ্বালা কমিয়ে দেয়।

সকালবেলা ব্রেকফার্স্টে বাসি ভাত খেলে দূর হয়ে যাবে গ্যাসের সমস্যা ৷ ডায়েটিশিয়ানরা বলেন, আমরা সারাদিন যাই খাই না কেন, সকালের প্রথম খাবারটি সবসময় ভারি হওয়া উচিত। পাউরুটি বা কর্নফ্লেক্সের থেকে ভাত পুষ্টিগুণে অনেকটাই এগিয়ে, তাই ব্রেকফার্স্টে ভাত খেলে বহুক্ষণ পেট ভর্তি থাকে। ফলে গ্যাসের সমস্যা থেকে রেহাই মেলে।

কোষ্ঠকাঠিন্যের অব্যর্থ ওষুধ বাসি ভাত। ভাত যেমন হজম করা সহজ, তেমনই কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতেও সাহায্য করে ভাত। এতে থাকা ফাইবার কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যাকে দূরে রাখে। এছাড়া সকালের খাবারের তালিকায় বাসি ভাত আসলে শরীরে যোগান দেয় পর্যাপ্ত পরিমাণ এনার্জি ৷ ভাতে থাকা প্রোটিন, সোডিয়াম ও কার্বোহাইড্রেট শরীরে পুষ্টিগুণ যোগায়।

আগেকার দিনে বহু বাড়িতেই সকালের টিফিনে আগের দিনের বাসি ভাত খাওয়ার প্রচলন ছিল। এমনকি নিম্নমধ্যবিত্ত বহু পরিবারে সকালে বাসি ভাত খাওয়ার প্রথা এখনও রয়েছে। যদিও পুষ্টিগুণের থেকেও বহুক্ষণ পেট ভর্তি থাকার কারণেই এই সব পরিবারের কাছে বাসি ভাত সকালের মেনুতে সবচেয়ে পছন্দের।

তথ্যসুত্রঃ টাইমস অব ইন্ডিয়া

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *