[X]
Home / স্বাস্থ্য-সেবা / জরায়ুমুখের ক্যানসারের লক্ষণগুলো ও চিকিৎসা জেনে নিন!

জরায়ুমুখের ক্যানসারের লক্ষণগুলো ও চিকিৎসা জেনে নিন!

নারীর যে প্রজননতন্ত্র, আমরা যাকে বলি ইউটেরাস, এর শেষে একটি অংশ থাকে, যেটা যোনিপথে এসে খুলে। একে আমরা জরায়ুমুখ বলি। এটি বাইরে থেকেই দেখা যায়। সেই মুখের যে ক্যানসার, একে বলা হয় জরায়ুমুখের ক্যানসার। আমাদের দেশে ঝুঁকিগুলো বেশি। যাদের অল্প বয়সে বিয়ে হয়ে যায়, তাদের জরায়ুমুখের ক্যানসারের আশঙ্কা থাকে।

কারণ:
মূল কারণ না জানা গেলেও নিম্নোক্ত রিক্স ফ্যাক্টরসমূহকে জরায়ু ক্যান্সারের জন্য দায়ী বলে মনে করা হয়-

– ২টি বয়সে বেশি দেখা যায়৷ ৩৫ বছরে এবং ৫০-৫৫ বছরে৷ অল্প বয়সে বিয়ে হলে (১৮বছরের নিচে) বা যৌন মিলন করে থাকলে। ২০বছরের নিচে গর্ভধারণ ও মা হওয়া। অধিক ও ঘনঘন সন্তান প্রসব। বহুগামিতা। স্বাস্থ্য সচেতনতার অভাব এবং জননাঙ্গের অপরিচ্ছন্ন অবস্থা।

– বিভিন্ন রোগ জীবাণু দ্বারা জরায়ু বারে বারে আক্রান্ত হলেও জরায়ু ক্যান্সারের সম্ভাবনা বেশি থাকে, যেমন – হারপিস সিমপ্লেক্স ভাইরাস এবং হিউম্যান প্যাপিলোমা ভাইরাস।

চিকিৎসা : ক্যানসারের আগের স্তরের শুরুতেই যথাযথ চিকিৎসার মাধ্যমে রোগীকে পুরোপুরি সুস্থ করে তোলা যায়। ক্যানসারের আগের স্তরে জরায়ুমুখের অস্বাভাবিক ও অনিয়ন্ত্রিত কোষ বিভাজনের চিকিৎসা করা হয় ক্রাইওথেরাপির মাধ্যমে। এ সময় আক্রান্ত কোষকলা ধ্বংস করে দেওয়া হয়। ইলেকট্রোকোওয়াগুলেশন বা বৈদ্যুতিক প্রবাহের মাধ্যমেও প্রচ- উত্তাপ সৃষ্টি করে আক্রান্ত কোষকলা ধ্বংস করা যায়। চিকিৎসার এ প্রক্রিয়ায় রোগীর সন্তান ধারণক্ষমতা অটুট থাকে। এ ছাড়াও পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর ক্যানসারের ধরন অনুযায়ী সার্জারি, রেডিয়েশন থেরাপি ইত্যাদির মাধ্যমে চিকিৎসা প্রদান করা হয়।

চিকিৎসা-পরবর্তী করণীয় : সার্জারি বা রেডিয়েশন থেরাপির পর রোগীকে নির্দিষ্ট সময় অন্তর পরীক্ষা করাতে হয়। যৌনমিলন থেকে কিছুদিন বিরত থাকতে হয়। নিয়ম ঠিকভাবে মেনে চললে চিকিৎসার দুই-তিন মাসের মধ্যে রোগী স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে পারেন।

প্রতিরোধ : বিবাহিত জীবনে প্রবেশের পর প্রত্যেক নারীকে প্রতি তিন বছরে একবার শারীরিক কিছু পরীক্ষা করাতে হয়। ধূমপান বন্ধ করতে হবে। বন্ধ করতে হবে পানের সঙ্গে জর্দা ও সাদা পাতা খাওয়া ও দাঁতের গোড়ায় গুল (তামাকের গুঁড়া) লাগানো। সুষম খাবার খেতে হবে। পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন, স্বাস্থ্যসম্মত ও সুশৃঙ্খল জীবনযাপন করতে হবে। সময় মতো এইচপিভি টিকা নিতে হবে।

লেখক : ক্যানসার বিশেষজ্ঞ ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক, ক্যানসার হোম, রাফা মেডিক্যাল সার্ভিসেস, ৫৩ মহাখালী (টিবি গেট), ঢাকা
তথ্যসুত্রঃ ইন্টারনেট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *