Home / টুকি-টাকি / পিঁপড়ার হামলা থেকে বাঁচার উপায় ও সারা শরীরে ব্যথা দূর করতে ১ কাপ চা পান করুন

পিঁপড়ার হামলা থেকে বাঁচার উপায় ও সারা শরীরে ব্যথা দূর করতে ১ কাপ চা পান করুন

গরমকালে খাবারদাবার তো বটেই, জামাকাপড়-বিছানাপত্রেও পিঁপড়া হামলা চালায়৷ দিনের শেষে শয্যার শরণ নিলেই যদি কুটুস-কুটুস কামড়ে বিপর্যস্ত হতে হয়, তা হলে তো মহা মুশকিল! অনেক সময় কোনও পোকা মারার ওষুধই পিঁপড়ার বিরুদ্ধে যথাযথ অস্ত্র হয়ে উঠতে পারে না।

তাছাড়া খাবার জিনিসপত্র, শোবার জায়গা বা জামাকাপড়ের উপর পোকা মারার ওষুধ ছড়ালে তার ক্ষতিকারক প্রভাবও হতে পারে৷ তার চেয়ে এমন কয়েকটি টোটকা ট্রাই করে দেখুন যা আপনার হাতের কাছেই মজুত রয়েছে এবং কোনও রাসায়নিক বিক্রিয়ারও বিন্দুমাত্র আশঙ্কা নেই৷

দারচিনি: আপনি যে ক্যাবিনেটে খাবার রাখেন, তার মধ্যে এবং আশপাশে খানিকটা দারচিনির গুঁড়ো ছড়িয়ে রেখে দিন৷ টেবিলে খাবার বা ফল ঢাকা দিয়ে রাখলেও তার চারপাশে দারচিনির পাউডার ছড়িয়ে রাখুন, পিঁপড়ে আসবে না। দারচিনির এসেনশিয়াল অয়েলও বাজারে কিনতে পাওয়া যায়, তার কয়েক ফোঁটা তুলোয় নিয়েও ফ্রিজে বা খাবারের ক্যাবিনেটে রাখতে পারেন৷ একই কাজ হবে।

লেবুর রস: ঘরের কোণ দিয়ে সার বেঁধে পিঁপড়ের সারি চলেছে আর খাবার-দাবারের গন্ধ পেলেই চাক বেঁধে হাজির হচ্ছে? ঘর মোছার পানির বালতিতে সরাসরি লেবুর রস মিশিয়ে নিন৷ বেশ খানিকটা মেশাবেন, বেশি পাতলা হয়ে গেলে লেবুর গন্ধটা থাকবে না৷ লেবুর গন্ধে পিঁপড়েরা আর খাবারের গন্ধ পায় না৷ ফ্রিজেও যদি পিঁপড়ের আনাগোনা থাকে, তা হলে সেখানেও লেবুর রস প্রয়োগ করে দেখতে পারেন৷ সমান পরিমাণ লেবুর রস আর পানি মিশিয়ে আপনার নিজস্ব স্প্রে তৈরি করে নিন৷ বিছানার খাঁজেও প্রয়োগ করতে পারেন, তবে অতিরিক্ত মাত্রায় নয়, তা হলে চটচটে লাগতে পারে।

শুকনো লঙ্কা: শুকনো লঙ্কার তীব্র ঝাঁজ নাকি পিঁপড়েদের দিগভ্রান্ত করে দেয়, তারা আর বাসায় ফিরে যাওয়ার রাস্তা খুঁজে পায় না৷ রান্নাঘরে বা ক্যাবিনেটে যদি পিঁপড়ের আক্রমণ বাড়ে, তা হলে গোটা শুকনো লঙ্কা রেখে দিন সেখানে৷ শুকনো তাওয়ায় ভেজে নেওয়া শুকনো লঙ্কাও পিঁপড়ের হাত থেকে বাঁচাতে সক্ষম৷

পিপারমিন্ট: পিপারমিন্ট এসেনশিয়াল অয়েল জলে মিশিয়ে স্প্রে হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন৷ বেশ কয়েকটি পুদিনার পাতা এক গ্লাস পানি ভালো করে ফুটিয়ে নিয়ে ছেঁকে নিন এবং স্প্রে করুন চারদিকে৷ চড়া গন্ধে পিঁপড়ের দল পালাতে পথ পাবে না!

*সাদা ভিনিগার: সমান পরিমাণে সাদা ভিনিগার আর পানি মিশিয়ে ভরে নিন স্প্রে মেশিনে৷ এই স্প্রে ছিটিয়ে দিলে পিঁপড়ের হাত থেকে তখনই মুক্তি পাবেন৷ তবে প্রতিবার ব্যবহারের আগে অবশ্যই একবার বোতলটা ভালো করে ঝাঁকিয়ে নেবেন।

সারা শরীরে ব্যথা, জাদুকরি ১ কাপ চা পান করুনঃ

ঘাড় ব্যথা, মাথা ব্যথা কিংবা হাত-পাসহ সারা শরীরের ব্যথা কাবু করে ফেলেছে আপনাকে। কোনো কাজে মনযোগী হতে পারছেন না। তাই বরাবরের মতো এবারও সহজেই মুক্তি পেতে পেইনকিলারের সাহায্য নিয়েছেন।

তবে একটা বিষয় ভুলে গেলে চলবে না, পেইনকিলার সাময়িকভাবে ব্যথা দূর করতে সাহায্য করে। পরে আবারও আপনাকে একই রকম ব্যথার সম্মুখিন হতে হবে, এটা আপনি বিশ্বাস করতে না চাইলেও সত্যি! চিকিৎসকের মতে, অতিরিক্ত পেইনকিলার আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।

পেইনকিলারে উচ্চ রক্তচাপ (উচ্চ রক্তচাপ), ডায়রিয়া, বমি বমি ভাব, রক্তপাতের মত নির্দিষ্ট পার্শ্ব-প্রতিক্রিয়া, হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি, কিডনি রোগ এমনকি ক্যান্সারের মতো মরণ ঘাতক রোগও হওয়ার আশংকা থাকে। আবার এ অসহ্য ব্যথা নিয়ে বসে থাকাও তো যায় না। তাহলে উপায়?

আরে এতো চিন্তা করছেন কেন? প্রাকৃতিক উপদান হলুদ দিয়ে তৈরি জাদুকরি এক চা, আপনার অসহ্য ব্যথা নিমিষেই কমিয়ে দেবে। গবেষকদের মতে, হলুদের স্বাস্থ্যগুণ সবার জানা। হলুদের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং অ্যান্টিইনফ্লেমেটরি উপাদানও দেহের প্রদাহ জনিত ব্যথা দূর করতে বিশেষভাবে কার্যকরী।
তাহলে দেরি কেন? আসুন জেনে নিই সেই জাদুকরি হলুদ চা তৈরির রেসিপি :

হলুদ চা তৈরির উপকরণঃ
চার কাপ পানি, দুই টেবিল চামুচ টাটকা মিহি হলুদ, একই পরিমাণ লেবু ও মধু (স্বাদ বাড়াতে)।

প্রস্তুত প্রণালীঃ
চুলায় পানি গরম করেত দিন। পানি গরম হলে এতে হলুদ গুঁড়া দিয়ে ১৫ থেকে ২০ মিনিট সিদ্ধ করুন। আপনি যদি ফ্রেশ হলুদ কুচি ব্যবহার করেন, তবে ১০ মিনিট সিদ্ধ করুন।পানি সিদ্ধ হয়ে আসলে এতে লেবুর রস অথবা মধু মিশিয়ে পান করুন।

তারপর দেখুন কীভাবে অল্প সময়ে জাদুকরি চায়ের সাহায্যে চিরবিদায় নিয়েছে আপনার শরীরের সব ব্যথা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *