Home / দাম্পত্য জীবন / সকালে সঙ্গীকে কীভাবে আদর করলে দিন ভালো যায়? জেনে নিন

সকালে সঙ্গীকে কীভাবে আদর করলে দিন ভালো যায়? জেনে নিন

সদ্য ওঠা সূর্যের আলোয় জানলার পর্দা সরিয়ে সঙ্গীকে প্রথম দেখলেই মনের মধ্যে জমা হয় একগুচ্ছ আবেগ। তখন সঙ্গীকে কাছে পেলে, তাকে আদর করলে দিন শুরু হয় ভরপুর এনার্জি নিয়ে। সারাটা দিন ভাল কাটে। পুরুষরা তো এই মতের সঙ্গে এক বাক্যে সায় দেবেন। কিন্তু নারীরা?



তারা যে ভালবাসে না, তা নয়। কিন্তু সমীক্ষা বলছে, এমন মেয়ের সংখ্যা নেহাতই হাতে গোনা। নগণ্য। খুব কম নারীই মন থেকে মর্নিং সহবাসকে সবুজ সংকেত দেন। বেশিরভাগই এ সব পছন্দ করেন না। একটি বিদেশি অনলাইন পোর্টাল সমীক্ষা করে এই রিপোর্ট দিয়েছে। প্রায় এক হাজার মানুষকে নিয়ে হয়েছিল এই সমীক্ষা। এর মধ্যে ৫৬ শতাংশ অংশগ্রহণকারী ছিলেন নারী। বাকি ৪৩ শতাংশ ছিলেন পুরুষ।



নারীরা বেশিরভাগই বলেছেন, তারা কখনও মর্নিং সহবাস করেননি। ৬৩ শতাংশ নারী স্বীকার করেছেন এ কথা। এদিকে পুরুষের ভোট কিন্তু এক্ষেত্রে খুব কম। মাত্র ৩৭ শতাংশ পুরুষ মর্নিং সহবাস করেননি। তাদের একটাই বক্তব্য, এতে শুধু সময় নষ্ট হয়। কিন্তু নারীদের কাছে রয়েছে একাধিক যুক্তি। প্রায় ৫০ দশমিক ৭ শতাংশ নারীরা মুডে থাকেন না। ৩৫ দশিমিক ৬ শতাংশ নারীর কাছে মর্নিং সহবাস মানে সময় নষ্ট। আর ৩২ দশমিক ৯ শতাংশ মনে করেন, সকালে তাদের শারীরিক মিলনের এনার্জি থাকে না।



আর যারা বিষয়টি উপভোগ করেন, তারা? তাদের মতে, এই সময় সবচেয়ে ভাল সঙ্গম হয়। তার আমেজই আলাদা। ভাষায় তা বর্ণনা করা যায় না। প্রায় ৫১ শতাংশ পুরুষের এটাই মত। কিন্তু মাতের ২০ শতাংশ নারী এই মতকে সমর্থন করেছেন। নিত্য তারা মর্নিং সহবাস করেন বলেও জানিয়েছেন। এর অনুভূতি একেবারে আলাদা বলে মত তাদের।

সমীক্ষায় দেখা গেছে যে সব দম্পতি নিজেদের সম্পর্ক নিয়ে সম্পূর্ণ সন্তুষ্ট, তারাই মর্নিং সহবাস করে বেশি। তুলনায় যাদের সম্পর্কে মিষ্টির থেকে টক ভাবটা বেশি, তারা এসব খুব একটা পছন্দ করেন না।



সমস্যা – শারীরিক জীবনের নানা ধরণ নিয়ে ঝামেলা হতে পারে। আপনার সঙ্গী হয়ত একটু বেশি চাইছেন আপনার কাছ থেকে, আপনার তাতে সায় নেই। হতে পারে উল্টোটাও। এছাড়া, শারীরিক ধরণ, সময় এসব কিছু নিয়েও মাঝে মধ্যে সমস্যা লেগে থাকতে পারে। এর জন্য কথা বন্ধ, এমনকি দরকারি কাজও পণ্ড হয়। অনেক সময়, সুস্থ, স্বাভাবিক সম্পর্কে এর খারাপ প্রভাব পড়ে। পরিবারের অন্য সদস্যদের উপরও এই ঝামেলার খারাপ প্রভাব পড়তে পারে।



‌সমাধান – সরাসরি সমস্যা নিয়ে কথা বলাটা উচিত। আপনি সঙ্গীর কাছ থেকে ঠিক কি চাইছেন সেটা নিজেরা কথা বলে নিলেই ভাল হয়। তবে বিছানায় বসে আদর করার সময়ে এই আলোচনা করা উচিত নয়। উত্তেজনার মুহূর্তে ঠাণ্ডা মাথায় আলোচনা করার মত পরিস্থিতি থাকে না। তাই ছুটির দিন, ঠাণ্ডা মাথায় এ নিয়ে আলোচনায় বসুন। তাতে সমাধান আসবে দ্রুত। যদি শারিরীক কোনও সমস্যা থাকে, তাহলে প্রথমেই চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত হবে আপনার। এতে লজ্জার কিছু নেই, যা নিয়ে ঝামেলা হচ্ছে, তার জন্য যদি চিকিৎসকের সাহায্য দরকার হয়, আর তাতে যদি কাজ হয়, তাহলে সে পদ্ধতি নেবেন না কেন!‌

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *