Home / ত্বকের যত্ন / ত্বকের যত্নে কিভাবে নারিকেল তেল ব্যবহার করবেন? জানুন

ত্বকের যত্নে কিভাবে নারিকেল তেল ব্যবহার করবেন? জানুন

চুলের যত্নে নারিকেল তেল সবচেয়ে বেশি উপকারী একথা সবাই জানেন। কিন্তু ত্বকের যত্নেও যে নারিকেল তেল অপ্রতিদ্বন্দ্বী সেকথা অনেকেরই অজানা। ত্বকের সুস্থতা ও সৌন্দর্যের জন্য আস্থা রাখতে পারেন নারিকলে তেলে। ত্বকের যত্নে সাধারণ নারিকেল তেল না কিনে এক্সট্রা ভার্জিন নারিকেল তেল কিনুন। এই তেল সাধারণ নারিকেল তেলের চেয়ে হালকা, পরিশুদ্ধও বেশি। নিয়মিত নারিকেল তেলের ব্যবহার ত্বকের ক্ষতিকর ব্যাকটিরিয়া নষ্ট করে ত্বকে সংক্রমণ প্রতিরোধ করে। ত্বকে কোনোরকম জ্বালাপোড়াভাব হলে তা কমাতেও নারকেল তেল যথেষ্ট কার্যকর। শুষ্ক ত্বকের জন্য নারিকেল তেলের মতো ভালো ময়শ্চারাইজার আর নেই।



যেভাবে ফেসপ্যাকে ব্যবহার করবেন নারিকেল তেল:
সিকি কাপ নারিকেল তেল, ১ টেবিলচামচ কাঁচা মধু ও সিকি কাপ শিয়া বাটার নিন। এবার একটি পাত্রে একসঙ্গে নারিকেল তেল আর শিয়া বাটার নিয়ে আঁচে বসিয়ে গলিয়ে নিন। আঁচ থেকে নামিয়ে তাতে কাঁচা মধু যোগ করুন। ভালো করে মিশিয়ে সারা মুখে সমানভাবে লাগান। অন্তত আধঘণ্টা রেখে ধুয়ে ফেলুন। এই ফেসমাস্কটি ক্লিনজারের মতো কাজ করে। ত্বকে জমে যাওয়া ধুলোময়লা ও মৃত কোষ সরিয়ে এবং রোমছিদ্র পরিষ্কার করে ত্বক উজ্জ্বল রাখতে জুড়ি নেই এই প্যাকটির।



১ টেবিল চামচ নারিকেল তেল ও ১ চাচামচ বেকিং সোডা নিন। এবার বেকিং সোডা আর তেল একসঙ্গে মিশিয়ে পেস্টের মতো করে নিন। ব্ল্যাকহেডসের উপর লাগিয়ে হালকা হাতে মিনিট দশেক মাসাজ করুন। তারপর মুখ ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দুইবার করলেই ব্ল্যাকহেডসের সমস্যা বিদায় নেবে। এই ফেসমাস্কটি ক্লিনজারের মতো কাজ করে। ত্বকে জমে যাওয়া ধুলোময়লা ও মৃত কোষ সরিয়ে ও রোমছিদ্র পরিষ্কার করে ত্বক উজ্জ্বল রাখতে জুড়ি নেই এই প্যাকটির।



১ চা চামচ নারিকেল তেল ও ১ চা চামচ দারুচিনি গুঁড়া নিন। এবার দারুচিনি গুঁড়া আর নারিকেল তেল একসঙ্গে মিশিয়ে পেস্টের মতো করে নিন। ব্রণের উপর লাগিয়ে আধঘণ্টা রেখে দিন। আধঘণ্টা পর মুখ ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে তিনবার করতে হবে। নারিকেল তেল আর দারুচিনি, দুটি উপাদানেই অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল গুণ রয়েছে যা ব্রণ কমাতে সহায়ক।



৩ টেবিলচামচ নারিকেল তেল, আধ চা চামচ হলুদ গুঁড়া, আধ চা চামচ লেবুর রস ও ১ টেবিল চামচ মধু নিন। এবার একটি পাত্রে সমস্ত উপাদান একসঙ্গে মিশিয়ে নিন। পরিষ্কার মুখে ফেস মাস্কটি লাগিয়ে ১৫-২০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দুই থেকে তিনবার করতে হবে। হলুদ ত্বকের দাগছোপ দূর করে উজ্জ্বলভাব আনতে সাহায্য করে, লেবুর অ্যাস্ট্রিনজেন্ট ত্বক তেলতেলে হতে দেয় না। মধু আর নারিকেল তেল ত্বকের আর্দ্রতা বজায় রাখে।



ঠোঁটের যত্নে
শুধু শীতেই যে ঠোঁট ফাটে তা নয়, অনেকে সারা বছর এই যন্ত্রণা ভোগ করেন। তাঁদের ভরসা রাখতে হয় বাজারে পাওয়া রাসায়নিক জেলের ওপর। এটি অনেক সময়ই মুখের ভেতরে চলে যায়, যা মারাত্মক ক্ষতি করতে পারে। এ ক্ষেত্রে শতভাগ নিরাপত্তা দিতে পারে নারিকেল তেল। এটা খুব দ্রুত ঠোঁটের বিভিন্ন সমস্যা উপশম করে।



ত্বকের সমস্যায়
একনিম সোরিয়াসিস ও একজিমার মতো সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে নারিকেল তেল বেশ উপকারী বলে মত দিয়েছেন অনেক বিশেষজ্ঞ। তবে এ নিয়ে বৈজ্ঞানিক গবেষণা চলছে। ত্বকের রোগে কোষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়। অনেক কোষ মরে যায়। এদের সরিয়ে দিয়ে নতুন কোষ গজাতে সহায়তা করে নারিকেল তেলের প্রোটিন। পাশাপাশি দৃশ্যমান ক্ষতও দূর করে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *