Home / মনের জানালা / প্রথম ডেটিংয়ে যে ১২টি বিষয় না মানলে বিপদে পড়বেন!

প্রথম ডেটিংয়ে যে ১২টি বিষয় না মানলে বিপদে পড়বেন!

কর্মব্যস্ত জীবনে আলাদা করে মনের মানুষ খুঁজে পাওয়ার সুযোগ অনেকেরই হয় না। এ দিকে একেবারে অচেনা কারও সঙ্গে জীবনের বাকি সময় কাটাতেও রাজি নয় আধুনিক প্রজন্ম। তাই আজকাল জীবনসঙ্গী বাছাইয়ের বিষয়ে অ্যাপ ও অনলাইনে ভরসা করছেন অনেকেই। ফলে স্বাভাবিকভাবেই জনপ্রিয়তা বাড়ছে অনলাইন ডেটিং অ্যাপগুলোর। সোশ্যাল মিডিয়ার হাত ধরেও মনের মতো মানুষকে খুঁজে পান অনেকই।



তবে শুধু জীবন সঙ্গীই নয়, একাকীত্ব ঘোচাতে বন্ধুদের খুঁজে পেতেও অনেকেই দ্বারস্থ এমন অ্যাপগুলোর। এমন একতাকীত্বের নেপথ্যে মনোবিদরা আধুনিক জীবনযাত্রার জটিলতা ও সমাজতত্ত্বের নানা জটের কথা বললেও অনলাইন ডেটিং সাইটগুলোর জনপ্রিয়তা তাতে ক্ষুণ্ণ হয় না। কিন্তু এই ধরনের ডেটিং সাইটে আলাপের পর ভাল লাগার মানুষটির সঙ্গে প্রথম মুখোমুখি সাক্ষাতে অবশ্যই কিছু নিয়ম মেনে চলুন। দীর্ঘমেয়াদী সম্পর্ক ও বন্ধুত্ব রাখার ক্ষেত্রে প্রথম দিনের এই ইমেজটি কার্যত অনেকটা কাজে আসে। তাই কেবল দেখা করাই নয়, সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতে মেনে চলুন বিশেষ কিছু নিয়ম।



১. প্রথমেই এমন একটা জায়গা বাছুন, যা আপনার চেনা এলাকার মধ্যে পড়ে ও জনবহুল। খুব ফাঁকা এলাকা, হোটেলের ঘর, বা অচেনা জায়গা দেখা করার জন্য বাছবেন না। পারলে ওই এলাকায় বিপদে পড়লে আপদকালীন কিছু ফোন নম্বর ফোনে মজুত রাখুন।



২. প্রথম থেকেই সৎ থাকুন। নিজের সম্পর্কে এমন কিছু বলবেন না, যা বিশ্বাসযোগ্য নয়। অকারণ মিথ্যা বলে ইমপ্রেস করারও চেষ্টা করবেন না। আপনি যেমন ঠিক সেভাবেই নিজেকে তুলে ধরুন সঙ্গীর সামনে। এতে ভবিষ্যতে এ সম্পর্ক এগোলে জটিলতা আসবে না। ৩. প্রথম দিনই কথাবার্তার মাঝে নিজের কিছু স্বভাবগত ভুলের কথা বলে রাখুন। এতে আপনাকে বুঝতে সুবিধা হবে তার।



৪. প্রথমেই মনে রাখতে হবে, দীর্ঘ দিনের আলাপ বা বন্ধুত্ব থেকে হওয়া প্রেমের যে ধরন, তার চেয়ে এই ধরনের আলাপ প্রকৃতিগতভাবেই বেশ আলাদা। তাই যদি সত্যিই এই সাক্ষাৎ থেকে কোনও সম্পর্ক তৈরির কথা ভাবেন, তাহলে খুব ছোট ছোট কেজো আলাপের বদলে এমন কোনও বিষয় নিয়ে কথা বলুন, যাতে সেই মানুষটির জীবনের বিশ্বাস, আদর্শ, শখ এ সব সম্পর্কে জানতে পারেন। প্রথম থেকেই আলাপে জড়তা কাটিয়ে এমনভাবে কথা বলুন, যেখানে কেবল নিজেদের কথাই নয়, সমাজ, রাজনীতি, চার পাশের কোনও গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাও উঠে আসবে আলাপে। এতে মানুষটি সম্পর্কে ধারণা আরও স্বচ্ছ হবে।



৫. অনেকেই আলাপের শুরুতেই এই সাক্ষাৎকার নিয়ে উল্টো দিকের মানুষটা কতটুকু ভাবছেন, আদৌ তার সঙ্গে এই সম্পর্ক নিয়ে অপরজন কী ভাবছেন। এই কাঁচা কাজটা প্রথম দিনের সাক্ষাতে একেবারেই করবেন না। আজকাল প্রত্যেকেই সময় ও ধীরে এগনোয় বিশ্বাসী। প্রথম দিনের তাড়াহুড়ো উল্টোজনের ভাল না-ও লাগতে পারে। বরং নিজেই বলুন, সময় নিয়ে বিষয়টি নিয়ে খতিয়ে ভাবতে।



৬. বাড়ি, পরিবার নিয়ে খুব গভীর কথা আলোচনা না করলেও মূলত দরকারি বিষয়গুলো জানুন। বাড়িতে কে কে আছেন, কেমনভাবে বেড়ে ওঠা, বাড়ির মানুষদের প্রতি তার মনোভাব এগুলো জানুন। ৭. প্রথম দিনই কোনও ভুল বোঝাবুঝি বা তর্ক এড়িয়ে যান। যদি কথা বলতে বলতে বোঝেন, মানুষটি আদৌ আপনার মনের মতো নয়, তাতেও অভদ্রতা না করে বুদ্ধি খাটিয়ে আলাপ থামিয়ে উঠে আসুন। তবে আপনার অপছন্দের প্রকাশ ব্যবহারে না হওয়াই উচিত।



৮. যদি বোঝেন, মানুষটি মনের মতো, কিন্তু কিছু অমিল আছে, তাদের থাকতে দিন। দু’জন মানুষের সব মিলতেই হবে এমন ধারণা থেকে সরুন। জীবনে চলার পথে অনেক পছন্দ-অপছন্দই বদলায়। কিন্তু জীবনের মূল আদর্শগত দিকগুলোর ভাবনায় আলাদা হলে সতর্ক হন। আরও এক বার বাবুন।



৯. আপনার পেশা ও আপনার বাড়ির মানুষ সম্পর্কে তিনি কী বাবছেন, আদৌ ভাবছেন কি-না এগুলোও মাথায় রাখুন। ১০. প্রথম দিনই খুব আবেগতাড়িত হয়ে বা উত্তেজনার বশে সব কথা উজাড় করবেন না। বিশ্বাস ও ভরসা তৈরি হওয়ার সময় দিন। ১১. প্রথম দিনই নিজের ও তার খুব ব্যক্তিগত বিষয় নিয়ে কথা বলবেন না। অতীতের সম্পর্ক নিয়েও কথা সে দিন এড়িয়ে চলুন। বরং সময় দিন সম্পর্কটাকে। নিজের ব্যক্তিত্ব ও কথায় এমন কিছু রাখুন যাতে পরের দিন দেখা করতেও রাজি হন সঙ্গী।



১২. যদি দেখেন পাশের মানুষটি আপনি না চাইলেও ঘনিষ্ঠ হওয়ার চেষ্টা করছেন, তবে প্রতিবাদ করুন ও দরকারে সেই জায়গা ত্যাগ করুন। ডেটিংয়ে আসা মানেই কিন্তু ঘনিষ্ঠতা তৈরি হতে দেওয়ার লাইসেন্স দেওয়া নয়।
সূত্র: আনন্দবাজার


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *