Home / ত্বকের যত্ন / হোয়াইটহেডস দূর করার ৪ সহজ উপায়!

হোয়াইটহেডস দূর করার ৪ সহজ উপায়!

হোয়াইটহেডস বা ব্ল্যাকহেডস হলো ত্বকে পিনের মতো ছোট, সাদা বা কালো ফুসকুড়ি যাকে আটকে যাওয়া রোমকূপের মতো মনে হয়। আমরা সব সময় ব্ল্যাকহেডস জনিত সমস্যা নিয়ে আলোচনা করে থাকি। কিন্তু আমাদের মাঝে এমন অনেকেই আছি যারা হোয়াইট হেডসের সমস্যায় জর্জরিত। হোয়াইট হেডস হল এক ধরনের ব্রণ যা মূলত গঠিত হয় যখন ত্বক দ্বারা নির্গত তেল বা মৃত কোষ দিয়ে ত্বকের রন্ধ্র ব্লক হয়ে যায়। অন্যদিকে বড়, লাল, ফুলে থাকা ও ব্যথাযুক্ত ফুসকুড়িকে আমরা বলি ব্রণ বা পিম্পল। মুখের টি-জোনে অর্থাৎ কপাল, নাক আর চিবুকে বেশি পরিমাণে হোয়াইটহেডস হতে দেখা যায়।



হোয়াইটহেডস অনেকে আঙ্গুলে বা নখে চাপ দিয়ে তুলে ফেলেন, কিন্তু তা করা যাবে না। কারণ অনেক সময় তা হোয়াইটহেড না হয়ে পিম্পল হতে পারে, এ ক্ষেত্রে চামড়ার নিচে পিম্পল রয়ে যেতে পারে ও এতে ব্যথা এমনকি ইনফেকশন হতে পারে। আর চাপাচাপির কারণে ত্বকে দীর্ঘমেয়াদী দাগও হয়ে যেতে পারে। কী করবেন তাহলে? জেনে নিন হোয়াইটহেডস দূর করার কিছু উপায়-



১) প্রফেশনাল এক্সট্রাকশনঃ হোয়াইটহেডস দূর করার জন্য নিজে চেষ্টা করবেন না। তা কিছুদিনের মাঝে দূর না হলে ডার্মাটোলজিস্ট বা ভালো মানের পার্লারে গিয়ে এক্সট্রাকশনের ব্যবস্থা করুন। এতে ইনফেকশনের ভয় কম হবে।

২) স্পট ট্রিটমেন্টঃ ব্রণ দূর করার জন্য কিছু ক্রিম পাওয়া যায়। এর মাঝে রয়েছে বেনজয়িল পারক্সাইড বা স্যালিসাইলিক এসিড জেল যা বিভিন্ন ব্র্যান্ডে পাওয়া যায়। এগুলো হোয়াইটহেডস দূর করতে কাজে আসে।



৩) টপিকাল ক্রিমঃ হোয়াইটহেডসের সমস্যায় বেশি ভুগলে ডার্মাটলজিস্টের থেকে টপিকাল ক্রিমের প্রেসক্রিপশন লিখে নিতে পারেন। টপিকাল রেটিনয়েড ক্রিম ঠিক হোয়াইটহেডের ওপরে দিলে তা দ্রুত দূর হবে।

৪) টি ট্রি অয়েলঃ ওষুধ ছাড়া কীভাবে দূর করবেন হোয়াইটহেডস? টি ট্রি অয়েল জীবাণু দূর করে। তাই তা হোয়াইটহেডের ওপর অল্প করে দিতে পারেন একটি কটন বাডের সাহায্যে। এ ছাড়া টি ট্রি অয়েল আছে এমন ফেস ওয়াশ ব্যবহার করতে পারেন। সূত্র: প্রিয় লাইফ



বোনাস টিপসঃ
এক কাপ পানিতে ৪ টেবিল চামচ বেকিং সোডা পেস্ট করে মুখে লাগান। পেস্টটি মুখে ১০ মিনিট রাখার পর হালকাভাবে ধুয়ে নিন। বেকিং সোডা ত্বকে থাকা বিভিন্ন ময়লা এবং ব্যাকটেরিয়া দূর করে ফেলে। তবে মুখটি ধোয়ার জন্য হালকা কুসুম গরম পানি ব্যবহার করলে ভালো ফলাফল পাওয়া যায়। এভাবে মাত্র ২০ মিনিটের ব্যবধানে দূর করে ফেলতে পারেন মুখের যত সব নোংরা ব্ল্যাকহেডস।



তৈলাক্ত ত্বক ছাড়াও শুষ্ক ত্বকেও ব্ল্যাকহেডস হতে পারে। শুষ্ক ত্বকের ব্ল্যাকহেডস দূর করতে দারুচিনি গুঁড়োর সঙ্গে মধু মিশিয়ে লাগান। এর পর দুই মিনিট ম্যাসাজ করে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দুইবার ব্যবহারে ব্ল্যাকহেডস অনেকটাই কমে আসবে।

হোয়াইট হেডস দূর করতে কর্নফ্লাওয়ার পানিতে মেশান। এর সঙ্গে কয়েক ফোঁটা ভিনেগার মিলিয়ে হোয়াইট হেডসে লাগান। আধঘণ্টা পর কুসুম গরম পানিতে নরম কাপড় ভিজিয়ে তুলে ফেলুন। এরপর ঠাণ্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।



নাকের পাশে বা ত্বকের যে কোনো জায়গায় হোয়াইট হেডসে আতপ চালের গুঁড়োর সঙ্গে মসুর ডাল বাটা লাগান। সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন। এছাড়া আক্রান্ত স্থানে মধু ও লেবু ভালো করে মিশিয়ে ১৫ মিনিট মুখে লাগিয়ে রাখুন। হোয়াইট হেডসের সমস্যা দূর হয়ে যাবে।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *