Home / দাম্পত্য জীবন / সকালের শারীরিক সম্পর্কে কী ঘটে শরীর ও মনে? জেনে নিন!

সকালের শারীরিক সম্পর্কে কী ঘটে শরীর ও মনে? জেনে নিন!

আধুনিক যুগে দম্পতিদের বেশিরভাগই নানা কাজে ব্যস্ত। চাকরি এবং পারিবারিক জীবন দু-য়ের মিশেলে তারা সবসময় চাপের মধ্যে থাকেন। সকালে তাড়াহুড়ার জন্য এক সঙ্গে নাস্তা করা তো হয়ই না, আবার অফিস থেকে ফিরতেও অনেক রাত হয়ে যায়। ফলে দুজনেই ক্লান্ত থাকেন। এ সময় শারীরিক সম্পর্কে মিলিত হলে ক্লান্তি যেন আরও বেড়ে যায়। কিন্তু তাই বলে তো আর দাম্পত্য জীবন থেমে থাকবে না।

বিভিন্ন পরিসংখ্যান এবং জরিপে দেখা গেছে, অনেক চাকরিজীবী দম্পতি ক্লান্ত থাকার পরেও রাতে মিলিত হতে ভোলেন না। এতে তারা আরও বেশি ক্লান্ত হয়ে পড়েন। পরের দিন কাজেও এর প্রভাব পড়ে। তাই ক্লান্তি কাটাতে মিলিত হওয়ার জন্য ‘সকাল’কে সঠিক সময়- বলছেন বিশেষজ্ঞরা। গবেষকরা জানিয়েছেন, সকালের শারীরিক সম্পর্ক স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী। এটি শুধু আপনাকে শক্তি ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে না, একই সঙ্গে আপনার শারীরিক সক্ষমতাও বাড়াতে সাহায্য করে। সকালে দাম্পত্যতায় কী কী উপকার পাওয়া যায় আসুন জেনে নিই।

শারীরিক সক্ষমতা বাড়ায় সকালের দাম্পত্য আপনাকে আরও বেশি সতেজ এবং কর্মঠ হতে সাহায্য করবে। এর ফলে আপনার রক্তেও একটা স্বাস্থ্যকর প্রবাহ বজায় থাকবে। এতে শারীরিক সক্ষমতা আরও বেড়ে যাবে।

উজ্জ্বলতা বাড়ায় সকালে মিলিত হলে নারীর শরীরে ইস্ট্রোজেনের উৎপাদন বেড়ে যায়। এতে তাদের ত্বকের উজ্জ্বলতাও বাড়ে। হার্ট অ্যাটাক প্রতিরোধ করে সকালের দাম্পত্য রক্তচাপকে অনেকটা হ্রাস করতে পারে। এর ফলে আপনার রক্তচাপ স্বাভাবিক থাকে। ফলে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকিও কমে যায়।

হতাশা দূর করে গবেষণায় দেখা গেছে, সকালে দীর্ঘ সময় ধরে মিলিত হলে অক্সিটোসিন নামে এক ধরনের হরমোন নির্গত হয়। এটি মস্তিষ্ককে শান্ত থাকতে সাহায্য করে। এর ফলে হতাশাও দূর হয়। স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায় সকালে দাম্পত্য রক্তচাপ হ্রাস করে এবং ধমনীর প্রসারণে সহায়তা করে। এর ফলে রক্তের জমাট বাধা সহজেই প্রতিহত করা যায়। এতে স্ট্রোকের ঝুঁকিও কমে যায়।

ইমিউন সিস্টেমের উন্নতি ঘটায় সকালে মিলিত হলে শরীরে ‘ইমিউনোগ্লোব্লিন’ এর উৎপাদন উদ্দীপিত হয়। এতে শরীরের ইমিউন সিস্টেম শক্তিশালী হয় এবং বিভিন্ন রোগের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে সাহায্য করে। ওজন কমায় সকালে প্রতিবার শারীরিক মিলন ৩০০ ক্যালোরি পোড়াতে সাহায্য করে। এর ফলে শরীর থেকে অনেকটা বাড়তি ওজনও কমে আসে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *