Home / ত্বকের যত্ন / ফর্সা ত্বক পেতে ব্লিচ করার ঘরোয়া পদ্ধতি জেনে নিন!

ফর্সা ত্বক পেতে ব্লিচ করার ঘরোয়া পদ্ধতি জেনে নিন!

স্কিন টোন হালকা করার জন্য সাধারণত মুখে ব্লিচ করা হয়ে থাকে| আমদের মুখে যে লোম থাকে তার রং হালকা হয়ে যায় ব্লিচ করার ফলে| ফলে আমাদের স্কিন কালার উজ্জ্বল হয়ে ওঠে| তবে অনেক সময় এই ব্লিচ করার জন্য যে উপাদানগুলি পার্লারে ব্যবহার করা হয় তার ফলে স্কিন ক্ষতিগ্রস্ত হয়| তাহলে উপায়? আপনার স্কিনকে এতটুকুও কষ্ট না দিয়ে কতগুলি সহজ উপায়ে বাড়িতেই কিন্তু সেরে ফেলতে পারেন ফেসিয়াল ব্লিচ| আর এর প্রয়োজনীয় উপকরণগুলি আপনার ফ্রিজ বা রান্না ঘরেই পেয়ে যাবেন| সময় নষ্ট না করে দেখে নিন ঠিক কিভাবে ৮-১০ দিনের মধ্যেই আপনার ফেসিয়াল কমপ্লেকশন উজ্জ্বল করে তুলবেন।

১. মধু
মধু আমাদের ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করে| এর নিয়মিত ব্যবহারে কিছুদিনের মধ্যেই আপনার মুখের লোমগুলির রং হালকা হয়ে যায় ফলে আপনার মুখের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পায়|

ব্লিচ প্যাক উপকরণঃ মধু ১ চামচ, লেবু ১ চামচ, পাউডার মিল্ক ১ চামচ, আমন্ড অয়েল ১ চামচ|

পদ্ধতিঃ সবগুলি উপকরণ একসাথে ভালো করে মিশিয়ে পেস্ট মত তৈরী করে মুখে মাখুন| ২০ মিনিট অপেক্ষা করুন| ঠান্ডা জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন| নিমেষে পেয়ে যান ফ্রেস এবং উজ্জ্বল ত্বক| এই প্যাক আপনি নিয়মিত ব্যবহার করতে পারেন| এক সপ্তাহ জাস্ট ট্রাই করে দেখুন।

২. লেবু
প্রাকৃতিক ব্লিচ হিসেবে লেবুর তুলনা নেই| এতে বর্তমান ভিটামিন সি নতুন কোষ গজাতে সাহায্য করে এবং স্কিন কমপ্লেকশন কে হালকা করে খুব তাড়াতাড়ি| তবে আপনার মুখে যদি কোনো এলার্জি বা ক্ষত থাকে তাহলে এই ব্লিচ প্যাক প্রয়োগ না করাই ভালো|

ব্লিচ প্যাক উপকরণঃ ৪ চামচ লেবুর রস, ১ বড় চামচ হারবাল হলুদ পাউডার|

পদ্ধতিঃ লেবুর রস ও হলুদ পাউডার মিশিয়ে ভালো করে মুখে মাখুন| ৩০ মিনিট পর জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন| দীর্ঘ মেয়াদী ফলের জন্য কিন্তু নিয়মিত প্রয়োগ জরুরী।

৩. ওটমিল
ওটমিল পুরনো, ডাল বা মৃত কোষ পরিষ্কার করে নতুন কোষ গজাতে সাহায্য করে আর এই নতুন কোষ আমাদের স্কিন কম্পপ্লেকশনকে হালকা করতে সাহায্য করে| তাই ঘরোয়া ব্লিচ হিসেবে এই উপাদানটি ট্রাই করলে ভালো ফল পেয়ে যাবেন খুব তাড়াতাড়ি|

ব্লিচ প্যাক উপকরণঃ দুটি পদ্ধতিতে আপনি ব্লিচ করতে পারেন| ১. ২ চামচ ওটমিল, ১ টি টমেটোর জুস। ২. ১ চামচ ওটমিল পাউডার, সামান্য হলুদ পাউডার, লেবুর রস।

প্রথম পদ্ধতিঃ টমেটো জুস ও ওটমিল একসাথে মিশিয়ে মুখে মাখুন| ২০ মিনিট পর হালকা হাতে মুখ ঘষে ঠান্ডা জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন| এতে আপনার মৃত কোষগুলি পরিষ্কার হয়| এই প্যাক নিয়মিত ব্যবহার করলে খুব তাড়াতাড়ি আপনার স্কিন কমপ্লেকশন হালকা হয়ে যাবে|

দ্বিতীয় পদ্ধতিঃ ওটমিল ও পাউডার, হলুদের সাথে লেবুর রস মিশিয়ে পেস্ট মত বানিয়ে নিন| এবার মুখে মেখে পুরোপুরি শুকিয়ে যাওয়া অবধি অপেক্ষা করুন এবং ঠান্ডা জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন| এই ব্লিচপ্যাক টিও আপনাকে প্রতিদিন ব্যবহার করতে হবে ভালো ফলের জন্য|

৪. শসা
ইনস্ট্যান্ট ব্লিচ হিসেবে শসা কিন্তু অত্যন্ত কার্যকরী| কোথাও বেরোনোর আগে মুখের উজ্জ্বলতা বাড়িয়ে তুলতে এই ব্লিচপ্যাক বেশ ভালো ফল দেবে| আর আগের পদ্ধতিগুলো ফলো করে যদি উপকার না পান, তাহলে শসা আপনার বেস্ট অপশন হতেই পারে!

ব্লিচ প্যাক উপকরণঃ ২ চামচ শসার জুস, ২ চামচ লেবুর রস|

পদ্ধতিঃ শসার জুস ও লেবুর রস ভালো করে মিশিয়ে মুখে মাখুন| ৫ মিনিট ধরে হালকা হাতে ভালো করে ঘষে নিন| পরে ভালো করে মুখ ধুয়ে নিন|

৫. ভেজিটেবল ব্লিচ প্যাক
আমরা যে সব সবজি খাই তার অনেকগুলিই প্রাকৃতিক ও ইনস্ট্যান্ট ব্লিচ প্যাক হিসেবে আপনি ব্যবহার করতে পারেন|

উপকরণঃ ১ চামচ টমেটো জুস, ১ চামচ আলুর জুস ও ১ চামচ শসার জুস|

পদ্ধতিঃ প্রতিটি উপাদান সঠিক পরিমাণে মিশিয়ে মুখে মাখিয়ে রাখুন ১০ থেকে ১৫ মিনিট| এবার হালকা হাতে মুখ ঘষে ঠান্ডা জলে মুখ ধুয়ে ফেলুন|

৬. বেসন
আপনার স্কিন টোন হালকা করার জন্য অপর একটি উপকারী উপাদানটি হলো বেসন| এতে বর্তমান উপাদানগুলি খুব সহজেই এবং খুব তাড়াতাড়ি আমাদের কমপ্লেকশনকে উজ্জ্বল করে তোলে|

ব্লিচ প্যাক উপাদানঃ বেসন ২ চামচ, গোলাপজল|

পদ্ধতিঃ ২ চামচ বেসন ও পরিমাণ মত গোলাপজল মিশিয়ে পেস্ট মত বানিয়ে নিন| প্যাকটি মুখে মেখে পুরোপুরি শুকিয়ে যাওয়া অবধি অপেক্ষা করুন| পুরোপুরি শুকিয়ে গেলে ঠান্ডা জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন| সপ্তাহে ৩ দিন যথেষ্ট উজ্জল ত্বক পাওয়ার জন্য|

বাড়িতে সহজেই এবং কোনো রকম ত্বকের ক্ষতি না করে আপনার হাতের কাছের জিনিস গুলো দিয়েই যখন উপকার পেতে পারেন তখন পকেটমানি পার্লারে না দিয়ে অন্য কাজে লাগিয়ে ফেলুন| নিজের পছন্দ মত এবং কার্যকরী ব্লিচপ্যাক বেছে নিন| নিয়মিত ও সঠিক প্রয়োগ আপনার ত্বকের উজ্জ্বলতা ও সৌন্দর্য্য দুইই বাড়িয়ে তুলবে কথা দিচ্ছি|

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *