Home / ত্বকের যত্ন / ৫ টি সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে ত্বকের যত্নে ব্যবহার করুন কাঁচা আদা!

৫ টি সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে ত্বকের যত্নে ব্যবহার করুন কাঁচা আদা!

যেকোনো সমস্যা থেকে ত্বককে বাঁচাতে পারে এক টুকরো আদা। আদা আমাদের ভেতর থেকে সুস্থ রাখার পাশাপাশি খুব সুন্দর ভাবেই ত্বক আর চুলকেও ভালো রাখতে পারে। আজ আসুন জেনে নেওয়া যাক কীভাবে কাঁচা আদা খেলে আমরা ত্বক সুন্দর রাখতে পারি। আমাদের ত্বকের যত্ন নিতে কাঁচা আদার ব্যবহার করেই দেখতে পারেন। এতে কিন্তু আপনি খুবই উপকার পাবেন।

১. বয়সের ছাপ হতে দেয় নাঃ এখন আমাদের কাজের চাপ, চিন্তা, ব্যস্ততা এইসবের জন্য অল্পবয়সেই মুখে বার্ধক্যের ছাপ পড়তে থাকে। অনেক কিছু মেখে হয়তো বাইরে থেকে সাময়িক ফল পেতে পারেন, কিন্তু স্থায়ী সমাধান কিছু হবে না। এক্ষেত্রে আপনি কাঁচা আদা ব্যবহার করে দেখতে পারেন। আদার মধ্যে থাকা অ্যান্টি-এজিং উপাদান আর অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট উপাদান টক্সিন বের করে দেয়। মুখে রক্ত সঞ্চালনের মাত্রা বাড়ায়। কীভাবে খাবেনঃ রোজ সকালে খানিক কাঁচা আদা মুখে নিয়ে চিবিয়ে নিন। প্রথম দিকে সমস্যা হবে। কিন্তু অভ্যেস করলে উপকার পাবেনই।

২.শীতে ত্বকের কুঁচকে যাওয়া আটকায়ঃ শীতকালে আমাদের ত্বক সবারই কম-বেশী কুঁচকে যায়। রক্ত শীতে খানিক ঘন হয়ে যায়। তাই শরীরের সবজায়গায় সমান ভাবে রক্ত পৌছাতে পারে না। মুখেও পৌছাতে পারে না। তাই চামড়া কুঁচকিয়ে যায়। আদা খেলে কিন্তু এই সমস্যার থেকে মুক্তি পাওয়া যায় আর স্কিন থাকে টানটান। কীভাবে খাবেনঃ গরমজলে ৪ টেবিল চামচ মতো আদা কুচি দিয়ে ফুটিয়ে নিন। এবার এই জল ঠান্ডা করে খেতে থাকুন। দেখবেন খুব তাড়াতাড়ি উপকার পাবেন।

৩. শ্বেতি রোগ কমাতেঃ শ্বেতি রোগ নিয়ে আমাদের অনেক বাছ-বিচার আছে। এই রোগ হলে দেখতে তো খারাপ লাগেই, তা অনেকসময় সামাজিক অসম্মানের কারণও হয়ে থাকে। কিন্তু জানেন কী কাঁচা আদা খুব সুন্দরভাবে এই শ্বেতিকে কমিয়ে আনতে পারে। কীভাবে খাবেনঃ কাঁচা আদা মুখে ফেলে রাখুন শুধু। ব্যাস আর কিছুই করতে হবে না। এছাড়া আপনারা আদা বাটাও মাখিয়ে রাখতে পারেন ওই শ্বেতির জায়গায়। কয়েক সপ্তাহেই উপকার পাবেন।

৪. পোড়া দাগ দূর করেঃ আপনার ত্বকে যে কোনো দাগই থাকুক না কেন, তা যদি রোদে পোড়া কালো দাগই হয়ে থাকে, তার থেকেও আদা আপনাকে মুক্তি দেবে। কীভাবে খাবেনঃ কাঁচা আদার রস করে নিন আগে। তারপর তা রোজ খেতে থাকুন খালি পেটে। এছাড়া কাঁচা আদাও আপনি পোড়া জায়গায় ঘষতে পারেন। ৪ থেকে ১২ সপ্তাহ করে দেখুন।

৫. ব্রণ দূর করতেঃ ব্রণ মূলত হয় ব্যাকটেরিয়া থেকে। আদায় থাকা অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল উপাদান তাই ব্রণ দূর করতে সাহায্য করে। ব্রণর জ্বালাও কমাতে সাহায্য করে। নিয়ম করে তাই আদার ব্যবহার করুন। কীভাবে খাবেনঃ আদার রস করে নিয়ে খালিপেটে খেতে থাকুন। আর সঙ্গে আদার একটা টুকরো হাল্কা করে ঘষতে থাকুন ব্রণর জায়গায়। কয়েক সপ্তাহেই ফল পাবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *