Home / ত্বকের যত্ন / তারুণ্যে ভরপুর উজ্জ্বল ত্বক চান? ত্বকে গাজর ব্যবহার করে দেখেছেন?

তারুণ্যে ভরপুর উজ্জ্বল ত্বক চান? ত্বকে গাজর ব্যবহার করে দেখেছেন?

ইদানীং সৌন্দর্য নিয়ে যে কোনও আলোচনায় রেটিনল নামে একটি ম্যাজিক উপাদানের কথা বারবার উঠে আসছে। ত্বকে অকালবার্ধক্যের হামলা ঠেকাতে রেটিনল নাকি মহৌষধ! তাই বয়সের দাগছোপ, বলিরেখা, কুঞ্চনের থাবা প্রতিরোধ করতে যে সব ক্রিম, সিরাম, লোশন আজকাল জনপ্রিয়, তার প্রতিটিতেই অ্যাকটিভ উপাদান হিসেবে ঢুকে পড়ছে রেটিনল। কিন্তু জানেন কি, এই রেটিনলের সুফল ত্বকে পৌঁছোতে বিশেষ কাঠখড় পোড়ানোর দরকার তো নেইই, এমনকী, নামী দামি ব্র্যান্ডেড ক্রিম, সিরাম কেনারও দরকার নেই। বরং আমাদের চির পরিচিত আর সহজলভ্য গাজরেই রয়েছে রেটিনলের অফুরন্ত ভাঁড়ার। প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় এই সবজিগুলো থাকলে আপনার ত্বক ভিতর থেকেই কোমল ও উজ্জ্বল থাকবে। আর যদি খাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মুখেও মাখতে পারেন ফেসিয়াল মাস্ক হিসেবে, তা হলে তো কথাই নেই! সবজির রেটিনল স্বাভাবিকভাবেই আপনার ত্বক করে তুলবে টানটান আর ঝকঝকে উজ্জ্বল!

গাজর আর মধুঃ একটা মাঝারি গাজর জলে সেদ্ধ করে নিন। তারপর মিহি করে মেখে তাতে মধু মিশিয়ে আরও একবার চটকে নিন। মুখে সমানভাবে মেখে মিনিট দশেক শুয়ে থাকুন। তারপর ঠান্ডাজলের ঝাপটায় ধুয়ে ফেলুন। মুখের ত্বক টানটান থাকবে, ছাপ ফেলতে পারবে না বয়স।

গাজরের রসঃ দুটো গাজর কুরিয়ে রস বের করে নিন। তাতে মেশান পাঁচ ফোঁটা অলিভ অয়েল আর একটা ডিমের কুসুম। মুখে লাগিয়ে রাখুন অন্তত কুড়ি মিনিট। ঠান্ডা জলে তোয়ালে ভিজিয়ে মুছে নিন। ক্লান্ত ত্বক উজ্জ্বল, কমনীয় করে তুলতে দারুণ কাজ করে এই ফেসপ্যাকটি৷

মুখের দাগ কমাতে গাজর বাটাঃ মুখে ব্রণ বা অন্য কোনও কারণে কালচে দাগ রয়েছে? সিকিভাগ গাজর মিহি করে কুরিয়ে নিয়ে দাগের উপর লাগিয়ে রাখুন দশ মিনিট। নিয়মিত গাজরের রস খেলেও দাগছোপ ধীরে ধীরে হালকা হয়ে আসবে।

স্নিগ্ধ ফেস মিস্টঃ প্রখর রোদ আর ধুলোবালিতে ত্বকের অবস্থা নাজেহাল? গাজরের শীতল স্পর্শ ত্বকে ফেরাবে নতুন প্রাণ। একটা গাজর কুরিয়ে রসটা বের করে নিন, তাতে মেশান দু’ভাগ গোলাপজল। স্প্রে বোতলে ভরে ফ্রিজে রেখে দিন। রোদ থেকে ফিরে মুখে স্প্রে করে নিলে শান্ত হয়ে যাবে ত্বক। সানট্যান কমাতে দারুণ কাজ করে এই ঘরোয়া স্প্রে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *