Home / সাজসজ্জা / ঠোঁট কালো হয় কেন? ঠোঁটের কালো দাগ দূর করুন!

ঠোঁট কালো হয় কেন? ঠোঁটের কালো দাগ দূর করুন!

ঠোট আমাদের শরীরের সবচেয়ে দৃশ্যমান অংশ। সুন্দর ঠোঁট আপনার চেহারাকে আকর্ষণীয় করে তোলে এবং আপনার ব্যক্তিত্যকে ফুটিয়ে তোলে। কিন্তু ঠোঁট শুষ্ক হয়ে যাওয়ায় চামড়া ওঠা, ফাটাভাব ও কালচে হওয়া খুবই নিয়মিত সমস্যা। ঠোঁটের ত্বক খুবই নরম ও সেনসেটিভ। ঠাণ্ডা-গরম, সূর্যরশ্মি, দূষণ সবই ঠোঁটের জন্য ক্ষতিকর। প্রত্যেকেই নিজের ঠোঁটকে আরও আকর্ষণীয় এবং পোষাকের সাথে মানানসই করতে ব্যবহার করেন নানা প্রসাধনী। কিন্তু বর্তমান প্রতিকূল পরিবেশ এবং বিভিন্ন প্রসাধনীর রাসায়নিক প্রভাবে এই শুভ্র গোলাপী ঠোঁট তার সৌন্দর্য হারিয়ে কালচে হয়ে যায়। আসলেই কি কারণে ঠোঁটের বেহাল দশা হয় আসুন জেনে নেয়া যাক-

১. চা, কফি সহ অন্যান্য পানীয় আপনার ঠোঁট কালো হওয়ার জন্য দায়ী। এগুলো খাওয়া এড়িয়ে চলুন। দিনে দুই বারের বেশি চা-কফি খাওয়া উচিত নয় প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে হবে, যা ঠোটকে আদ্র রাখতে সাহায্য করবে। ২. ধূমপানের অভ্যাস থাকলে ত্যাগ করুন। কেননা, ধূমপান করলে ঠোঁট কালো হবেই।

৩. পানিশূন্যতা আপনার ঠোঁটের আর্দ্রতা কেড়ে নেয়। তাই নিয়ম করে প্রতিদিন পানি পান করুন, কমপক্ষে ৮-১০ গ্লাস। ৪. সরাসরি সূর্যের আলো ঠোঁটের স্বাভাবিক রঙ নষ্ট করে। যতদূর সম্ভব এটা এড়িয়ে চলুন। বাইরে যেতে হলে উচুমানের সানস্ক্রিন লোশন ব্যবহার করুন। ৫. ঠোঁটে স্ক্রাব না করা হলেও ঠোঁট কালচে হয়ে যায়। তাই মাঝে মাঝে ঠোঁটে চিনি ও ক্রিমের মিশ্রণ মিশিয়ে ঘষে নিবেন। এতে ঠোঁটের সৌন্দর্য অক্ষুণ্ণ থাকে।

এ সমস্যা থেকে বাঁচার উপায়-
লেবুর রসের সাথে মধু মিশিয়ে প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর আগে লাগালেও একই উপকার পাবেন। অ্যালোভেরা জেল এবং নারিকেল বেটে সাদা রস ঠোঁটে লাগান। নিয়মিত ব্যবহারে ঠোঁটের স্বাভাবিক রঙ ফিরে আসবে।

এছাড়াও, অল্প পরিমাণ চিনি এবং কোল্ড ক্রিম একসাথে মিক্স করে ঠোঁটের স্ক্রাব হিসেবে ব্যবহার করুন। কোল্ড ক্রিমের বদলে অলিভ অয়েল-ও ব্যবহার করতে পারেন। এর ফলে ঠোঁটের ন্যাচারাল কালার ফিরে আসবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *