Home / চুলের যত্ন / শীতের দিনে দ্রুত চুল বৃদ্ধি করার ৪টি গোপন পদ্ধতি জেনে রাখুন!

শীতের দিনে দ্রুত চুল বৃদ্ধি করার ৪টি গোপন পদ্ধতি জেনে রাখুন!

নানা কারণে আমাদের চুল শুষ্ক ও রুক্ষ হয়ে যায়। এছাড়া খুসকি থেকে শুরু করে চুলের নানাবিধ সমস্যাতো আছেই। অার শীতকালে ধূলাবালিতে চুল আরো বেশি বাজে চেহারা ধারণ করে। শীতে অনেকেরই চুলে দেখা যায় খুশকি। ফলে চুল পড়ে যায়। চুল যেন খুব দ্রুত বেড়ে ওঠে সে জন্য নিচে কিছু টিপস দেয়া হল। চলুন জেনে নিই-

নিয়মিত চুল ছাটা –
চার থেকে পাঁচ সপ্তাহ পর পর চুল ছাটাই করা উচিত। এতে আপনার চুল দ্রুত বৃদ্ধি পাবে। শিকড় থেকে যখন চুল বেড়ে ওঠে আস্তে আস্তে নিচের দিকে তা ফেটে যায়। ফেটে যাওয়ার ফলে তা আর বাড়তে পারে না। তাই ধীরে ধীরে তা পড়ে যেতে থাকে। ছাটাইয়ের ফলে চুল প্রয়োজনীয় অক্সিজেন পায় এবং দীঘল কালো হয়ে বেড়ে ওঠতে থাকে।

গরম তেল ম্যসেজ করুন-
এক সপ্তাহ পরপর মাথায় গরম তেল ম্যসেজ করলে আপনি অবিশ্বাস্য ফলাফল পাবেন। এতে করে শুধু আপনার চুল বৃদ্ধিই পাবে না বরং আপনার চুলকে করবে ঘন এবং চুল পড়া বন্ধ করবে। আপনার চুলের উপযোগী তেল ব্যবহার করে আপনি পেতে পারেন ভালো ফলাফল।

চুলে প্রোটিন দিন-
ভিটামিন ‘ই’ ক্যাপসুল বাজারে পাওয়া যায়। সপ্তাহে একবার চুলে ভিটামিন ‘ই’ ক্যাপসুল এবং ডিমের সাদা অংশ ম্যাসাজ করলে চুল হয়ে ওঠে আরো ঘন ও উজ্জল। এতে করে চুল গোড়া থেকে হয় শক্ত।

রাতে চুলের যত্ন নিন-
রাতে ঘুমাতে যাবার আগে অন্তত ৫০ বার চিরুনি দিয়ে চুল আঁচড়ানো উচিত। এতে করে চুলের গোড়া শক্ত হয় এবং চুল পড়া বন্ধ করে। চিরুনীর পাশাপাশি প্রচুর পানি পান করুন।

চুলের ডগা ফেটে গেলে চুল রুক্ষ হয়ে যায় এবং চুল বাড়তে সমস্যা হয়। ফলে চুলের ওই অংশ কেটে বাদ দিলে চুলের বৃদ্ধিতে কোনো বাধা থাকবে না। এছাড়া চুলের নিচের অংশ অল্প করে কেটে নিলে চুলের ডগা ভালো থাকবে। শীতে বেশীর ভাগ মানুষের চুল রুক্ষ আর শুষ্ক হয়ে পড়ে। তাই রুক্ষ এবং নিষ্প্রাণ চুলের জন্য আধা কাপ পালং শাক, ১ চা চামচ মধু এবং ১ চা চামচ অলিভ অয়েল বা নারিকেল তেল নিয়ে ব্লেন্ডারে ভালো মতো ব্লেন্ড করুন। এরপর এই মিশ্রণটি চুলে লাগিয়ে ৩০ মিনিট পর শ্যাম্পু করে ফেলুন। চুলে সিল্কি ভাব আসবে ও চুল হবে মসৃণ ও প্রাণবন্ত।

রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে ভালো করে চিরুনি দিয়ে চুল আঁচড়ে শোওয়া দরকার। এতে মস্তিষ্কে রক্ত চলাচল ভালো হয়। মস্তিষ্কে রক্ত চলাচল বাড়লে চুল পড়া কমবে এবং চুলের গোড়া মজবুত হবে। খুশকির সমস্যা দূর করতে এক মুঠো জবা পাতা আর সমপরিমাণ মেহেদি পাতা পেস্ট করে নিয়ে তাতে ১ টেবিল চামচ লেবুর রস মিশিয়ে চুলে দিতে পারেন। ৩০ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন।

সপ্তাহে দুই থেকে তিন দিনের বেশি শ্যাম্পু করা ঠিক নয়। ঘন ঘন শ্যাম্পু ব্যবহারে চুল শুষ্ক হয়ে পড়ে। এছাড়া কেমিক্যাল ছাড়া মাইল্ড শ্যাম্পু ব্যবহার করাটাই চুলের জন্য ভালো। চুলে সূর্যের আলো লাগান। কেননা সূর্য থেকে প্রাপ্ত ভিটামিন ডি চুলের বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। একইসঙ্গে এটি মাথায় রক্ত চলাচলেও উন্নতি ঘটায়। এছাড়া চুলের এই যত্নগুলোর পাশাপাশি খান সুষম খাদ্য ও পচুর পরিমাণে পানি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *