Home / ত্বকের যত্ন / মাত্র ৭ দিনে মুখের লোম ছিদ্র বা গর্ত দূর করার কার্যকারী পদ্ধতি

মাত্র ৭ দিনে মুখের লোম ছিদ্র বা গর্ত দূর করার কার্যকারী পদ্ধতি

অনেকের ক্ষেত্রেই মুখের বড় ও খোলা লোমকূপ সৌন্দর্যের ক্ষেত্রে বাধা হয়ে দাঁড়ায় এবং এর ফলে ব্রণ ও ব্ল্যাকহেডস এর সমস্যা দেখা দেয়, বিশেষ করে তৈলাক্ত ত্বকের মানুষদের। অতিরিক্ত সিবাম, ময়লা ও ব্যাকটেরিয়ার সাথে মিশে লোমকূপ গুলো বন্ধ করে দেয়। ব্ল্যাকহেডস লোমকূপগুলোকে অনেক বড় ও দৃশ্যমান করে।দীর্ঘক্ষণ সূর্যের আলোতে থাকলে মুখের লোমকূপগুলো খুলে যায় কারণ এতে কোলাজেন ড্যামেজড হয় ও লোমকূপের দেয়াল গুলোর স্থিতিস্থাপকতা কমে যায়।

একই ভাবে উন্মুক্ত লোমকূপের কারণে ত্বক তাঁর স্থিতিস্থাপকতা হারায় এবং বয়স বেশি দেখায়। জেনেটিক কারণে, স্ট্রেস এবং ত্বকের যত্ন না নিলে লোমকূপ উন্মুক্ত হয়। যদিও মার্কেট গুলোতে এই সমস্যা সমাধানের জন্য প্রচুর কসমেটিক পাওয়া যায় তবুও এটা মনে রাখা প্রয়োজন যে, লোমকূপ আপনার ত্বকের ন্যাচারাল একটি অংশ এবং এটা পুরোপুরি দূর করা সম্ভব নয়। তাই শপিং এ যাওয়ার আগে আপনি কিছু সহজ, কমদামী ও প্রাকৃতিক ঘরোয়া উপায় অবলম্বন করে আপনার লোমকূপের সমস্যাটি কমাতে পারেন। আসুন তাহলে জেনে নেই সেই ঘরোয়া উপায় গুলো কি।

বরফ: বড় লোমকূপ সংকুচিত করার সহজ ও কার্যকরী উপায় হচ্ছে বরফ লাগানো। কারণ বরফের ত্বক টান টান করার ক্ষমতা আছে। মেকআপ করার আগে বড় লোমকূপকে কমানোর জন্য প্রায়ই বরফ ব্যবহার করা হয়। এছাড়াও বরফ সংবহনকে উদ্দীপিত করে ও ত্বককে স্বাস্থ্যকর করে। পরিষ্কার কাপড়ে কয়েকটি বরফের টুকরো নিয়ে আপনার ত্বকের উপর ১৫ থেকে ৩০ সেকেন্ড ধরে রাখুন। এইভাবে প্রতিদিন কয়েকবার করুন। যখন ত্বকের উন্নতি লক্ষ্য করবেন তখন বরফ ব্যবহারের মাত্রা কমাতে পারেন। বিকল্প উপায় হিসেবে আপনি বরফ ঠাণ্ডা পানি দিয়ে প্রতিদিন একবার মুখ ধুতে পারেন। আরো ভালো ফল পাওয়ার জন্য বরফের টুকরার সাথে শশার রস, আপেলের জুস, গ্রিন টি বা গোলাপ জল ব্যবহার করতে পারেন।

মুলতানি মাটি: মুলতানি মাটিকে “ফুলারস আর্থ” ও বলা হয় যা উন্মুক্ত লোমকূপকের জন্য উপকারি প্রাকৃতিক প্রতিকার। মুলতানি মাটি ত্বকের অতিরিক্ত তেল শোষণ করে এবং ত্বকের এক্সফলিয়েট করে। এছাড়াও ত্বকের ক্ষত ও দাগ কমাতে সাহায্য করে মুলতানি মাটি এবং সূর্যের ক্ষতিকর প্রভাবের ক্ষেত্রে উপকারি ভূমিকা রাখে। দুই টেবিল চামচ মুলতানি মাটির সাথে পর্যাপ্ত পরিমাণ গোলাপ জল মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। পেস্টটি মুখে লাগিয়ে ১৬-২০ মিনিট রাখুন। শুকিয়ে গেলে ঘষে উঠিয়ে ফেলুন এবং ঠাণ্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। মাটির এই মাস্কটি সপ্তাহে এক বা দুই বার ব্যবহার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *