Home / ত্বকের যত্ন / স্থায়ীভাবে ত্বককে উজ্জ্বল রাখতে ৬টি ঘরোয়া পদ্ধতি

স্থায়ীভাবে ত্বককে উজ্জ্বল রাখতে ৬টি ঘরোয়া পদ্ধতি

ত্বক উজ্জ্বল থাকলে কেউ সাজুক আর না সাজুক দেখতে কিন্তু বেশ লাগে। তাই সব মেয়েরাই ত্বকের বিশেষ পরিচর্যা করে। প্রাচীনকাল থেকে প্রাকৃতিক উপায়ে ত্বক উজ্জ্বল করার অনেক পদ্ধতি ব্যবহার হয়ে আসছে। এই পদ্ধতিগুলো অবশ্য বাজারের কেনা ক্রিম থেকে ভালো কাজ করে। নেই কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও। এগুলো ঘরে বসেই এই পদ্ধতি অবলম্বন করা সম্ভব। তবে চলুন ত্বক উজ্জ্বল রাখতে কিছু ঘরোয়া পদ্ধতি জেনে নেই-

কাঁচা দুধ: ত্বকের ভিতরে যখন পুষ্টির ঘাটতি হয় এবং ত্বকের আদ্রতা হারিয়ে যায় তখন ত্বক কালো ও শুষ্ক হয়ে যায়। এ সময় নিয়মিত কাঁচা দুধের সাহায্যে ত্বকের পরিচর্যা করার পরামর্শ দেন রূপচর্চা বিষয়ক বিশেষজ্ঞরা। এক্ষেত্রে অল্প পরিমাণে কাঁচা দুধ নিয়ে মুখে লাগিয়ে কিছু সময় মাসাজ করতে হবে। নিয়মিত ১৫ মিনিট এমনভাবে ত্বকের পরিচর্যা করলে সৌন্দর্য বৃদ্ধি পাবে চোখে পরার মতো।

কলা : একাধিক স্টাডি অনুসারে, কলায় উপস্থিত রয়েছে ভিটামিন এ, বি, ই এবং পটাশিয়াম, যা ত্বকের ভিতরে প্রবেশ করে ত্বককে উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে। সেই সঙ্গে ত্বকের গভীরে পুষ্টির ঘাটতিও দূর হয়। এক্ষেত্রে পরিমাণ মতো কলা নিয়ে চোটকে নিতে হবে। তারপর সেই পেস্টটি ভাল করে মুখে লাগিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে।

লেবু ও মধু : ত্বকের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করতে মধু ও লেবুর কোনও বিকল্প হয় না। আসলে এই প্রাকৃতিক উপাদানের ভিতরে থাকা একাধিক পুষ্টিকর উপাদান একদিকে যেমন ত্বকের সৌন্দর্য বাড়ায়, তেমনি ত্বকের যে কোনও ধরনের দাগও মিলিয়ে যেতে সাহায্য করে। এক্ষেত্রে এক চামচ মধুর সঙ্গে আধ চামচ লেবুর রস মিশিয়ে একটি পেস্ট বানিয়ে নিতে হবে। তারপর সেই পেস্টটি ভাল করে মুখে এবং গলায় লাগিয়ে হালকা গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলতে হবে।

দই: এতে উপস্থিত ল্যাকটিক অ্যাসিড এবং আলফা হাইড্রক্সসিয়াল অ্যাসিড মৃত কেষের স্থরকে সরিয়ে দেয়। সেই সঙ্গে ত্বকের ভিতরে পুষ্টির ঘাটতি যেমন দূর করে, তেমনি ক্ষতিকর টক্সিক উপাদানদের বের করে দেয়। এক্ষেত্রে এক বাটি দইয়ের সঙ্গে সম পরিমাণে ওটস মিলিয়ে একটা পেস্ট বানিয়ে নিতে হবে। তারপর তা মুখে লাগিয়ে ১৫ মিনিট অপেক্ষা করতে হবে। সময় হয়ে গেলে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফলতে হবে।

পেঁপে: ত্বককে উজ্জ্বল করতে নিয়মিত পেঁপে দিয়ে বানানো ফেসপ্যাক মুখে লাগাতে হবে। এক্ষেত্রে পরিমাণ মতো পেঁপের সঙ্গে মধু মিশিয়ে নিতে হবে। তারপর তা মুখে লাগিয়ে কম করে ২০ মিনিট ভাল করে মাসাজ করতে হবে। এইভাবে প্রতিদিন ত্বকের পরিচর্যা করলেই ভাল ফল পাওয়া যাবে।

টমাটো: এতে উপস্থিত লাইকোপেন নামক এক ধরনের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট একদিকে যেমন ত্বকের ভিতরে ক্ষত সারায়, তেমনি পুষ্টির ঘাটতিও দূর করে। এক্ষেত্রে অল্প পরিমাণ টমাটোর রসের সঙ্গে পরিমাণ মতো মধু মিশিয়ে সেটি মুখে লাগাতে হবে। শুধু টমেটো দিয়েও মাসাজ করতে পারেন।

সূত্র : বোল্ডস্কাই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *