Home / চুলের যত্ন / দ্রুত চুল লম্বা করার ৭টি গোপন পদ্ধতি জেনে নিন!

দ্রুত চুল লম্বা করার ৭টি গোপন পদ্ধতি জেনে নিন!

চুলের বৃদ্ধি একটি স্বাভাবিক এবং প্রাকৃতিক শারীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়া। রাতারাতি এই প্রক্রিয়াকে বদলে ফেলা এবং প্রতিদিন এক ইঞ্চি করে চুলের বৃদ্ধি ঘটানো সম্ভব নয়। মানুষের শরীরের প্রতিটি চুল তার নিজস্ব গতিতে স্বাভাবিকভাবেই বৃদ্ধি পেতে থাকে। চুলের স্বাভাবিক বৃদ্ধির হার হলো প্রতি মাসে ১.২৫ সেন্টিমিটার অথবা ০.৫ ইঞ্চি। যেটা পুরো বছর শেষে এসে দাঁড়ায় ১৫ সেন্টিমিটার অথবা ৬ ইঞ্চিতে।

সঠিক যত্নের অভাব এবং অনিয়মিত খাদ্যাভাস চুলের স্বাভাবিক বৃদ্ধি ব্যহত করে থাকে। অপরদিকে, পরিপূর্ণভাবে চুলের যত্ন এবং সঠিক খাদ্যাভাস মেনে চললে, সেটা চুলের স্বাভাবিক বৃদ্ধিকে ত্বরান্বিত করতে সাহায্য করে থাকে। জেনে নিন এমন দারুণ কিছু টিপস যা সাহায্য করবে চুলের বৃদ্ধি করতে।

১। নিয়মিত চুল কাটুনঃ
চুলের নিরবচ্ছিন্ন বৃদ্ধি নিশ্চত করতে নিয়ম করে চুলের আগা ট্রিম করুন। প্রতি দুই মাসে অন্তত একবার চুলের আগা ছাঁটলে চুলের আগা ফাঁটেনা বা চুল ড্যামেজ ও হয়না। তাছাড়া চুলকে সুন্দর একটা সেপ দিতে হলে নিয়মিত চুল কাটতে হবে।

২। নিয়মিত ব্রাশ করুনঃ
শুধুমাত্র চিরুনি দিয়ে চুল আচড়েলেই চলবেনা। প্রতিদিন অন্তত দশমিনিট চুলে ব্রাশ করুন। এতে চুলের গোড়ায় রক্ত সঞ্চালন বৃদ্ধি পায় এবং চুল মজবুত হয়।

৩। প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার খানঃ
খাদ্যতালিকায় প্রচুর পরিমাণের প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার যোগ করুন। ফল-মূল, শাক-সবজী, মাছ, মাংস দুধ ইত্যাদি খেলে প্রচুর পরিমানে কেরাটিন উৎপন্ন হয় যা চুলের দ্রুতবৃদ্ধি নিশ্চত করে।

৪। এলোভেরা হেয়ার প্যাকঃ
তিনটি এলোভেরা পাতার extract এর সাথে মধু মিশিয়ে চুলের গোড়ায় লাগন। ২০ মিনিট পরে ধুয়ে ফেলুন। এছাড়া আরোও একটি প্যাক ট্রাই করতে পারেন। টমেটো ব্লেন্ড করে তার সাথে এলোভেরার নির্জাস ও অলিভ ওয়েল মিশিয়ে একটু গরম করে চুলের গোড়ায় লাগিয়ে রাখুন। আপনি চাইলে যতক্ষণ ইচ্ছা রাখতে পারেন। দুটি হেয়ার প্যাকই চুল বৃদ্ধিতে ভাল কাজ করে।

৫। বায়োটিনঃ
বায়োটিন পানিতে দ্রবনীয় এক প্রাকারের ভিটামিন B। চুল বৃদ্ধিতে বায়োটিনের ও ভূমিকা আছে তাই এটাও ট্রাই করে দেখতে পারেন।

৬। নিয়মিত শ্যাম্পু করুনঃ
চুল পরিষ্কার রাখা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। নিয়মিত শ্যম্পু করুন। প্রথমে বোতল থেকে হাতের তালুতে শ্যম্পু ঢেলে একটু পানি দিয়ে ঘঁষে তারপর চুলে লাগান। আংগুল দিয়ে মাথায় বিলি কেটে শ্যাম্পু করুন। তবে খেয়াল রাখবেন কখনোই চুলের গোড়ায় বা মাথার খুলিতে যেন কন্ডিশনার না লাগে কারন কন্ডিশনার ত্বকের জন্য খুব একটা ভালো না।

৭। পরিমিত ঘুমঃ
স্বাস্থ্যবান, দীর্ঘচুলের জন্য প্রয়োজন সুনিদ্রা। কোষের বৃদ্ধি ও পুনর্জীবনের জন্য প্রতিদিন ৬ থেকে ৭ ঘন্টা ভালো করে ঘুমতে হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *