Home / মনের জানালা / জেনে নিন হাতে এই রেখা চিহ্ন থাকার গোপন রহস্য!

জেনে নিন হাতে এই রেখা চিহ্ন থাকার গোপন রহস্য!

মানুষের হাতের মধ্যে বিভিন্ন রেখা চিহ্ন দেখা যায়। হাতের এসব রেখা চিহ্ন দিয়ে চেনা যায় আপনি মানুষটা কেমন। আপনার হাতই তা বলে দেয়। জ্যোতিষীরা আবার ভূত-ভবিষ্যত্‍‌ও গড়গড়িয়ে বলে যান হাতের রেখা দেখে। হৃদয়রেখা, আয়ুরেখা, শীর্ষরেখা- তা অনেক রেখাই হাতে দেখেছেন বা রেখা নিয়ে শুনেছেন অনেক কথা। কিন্তু, কখনও দেখেছেন আপনার হাতে M আছে কি না? যদি থাকে, নিশ্চিত ভাবেই আপনি এক্সট্রাঅর্ডিনারি। হ্যাঁ, এমনটাই মনে করেন প্রখ্যাত জ্যোতিষীরা।

জ্যোতিষশাস্ত্র মতে, কোনও পুরুষের হাতে M থাকলে, তিনি খুবই প্রতিশ্রুতিমান। অত্যন্ত অনুভূতিপ্রবণ। উদ্যোগপতি হিসেবে সাফল্য অবধারিত। ব্যবসার একজন অংশীদার হিসেবেও আপনি অসাধারণ। কোনও মেয়ে যদি এমন পুরুষের প্রেমে পড়েন, সম্পর্কের ভবিষ্যত্‍‌ নিয়ে নিশ্চিত থাকতে পারেন। কোনও ভাবেই প্রতারিত হবেন না। চোখ বন্ধ করে ভরসা করুন। কারণ, এমন পুরুষ প্রণয়ীর কাছে মিথ্যে বলেন না। বা, অকারণে অজুহাত খোঁজেন না।

আর মহিলাদের হাতে যদি M থাকে, তিনি পুরুষের তুলনায় আরও বেশি ক্ষমতাশালী। যদি প্রেমিক-প্রেমিকা দু’জনের হাতেই ভাগ্যক্রমে M থাকে, তা-ও মেয়েটির ক্ষমতাই বেশি হবে।

হাতের তালুতে M থাকা ছেলে বা মেয়ে যে কেউ-ই যে কোনও পরিস্থিতিতে সহজেই খাপ খাইয়ে নিতে পারেন। সফল্যের জন্য নিজের মধ্যে প্রয়োজনীয় পরিবর্তনও এঁরা করতে পারেন।

অতএব, যদি হাতে M থাকে, নিশ্চিতে এগিয়ে যান। নিজের ওপর আস্থা রাখুন। সাফল্য আপনার সঙ্গেই।

আরো পড়ুন,
স্বামী বা সঙ্গীর আঙুলই দেখে জেনে নিন নারীর প্রতি তার মনোভাব ও ভালোবাসা কতটুকু

অনেক সময় কোনও মানুষের বিভিন্ন শারীরিক বৈশিষ্ট্যের ভিত্তিতে তার ব্যক্তিত্ব, ভবিষ্যৎ বা অতীত ব্যাখ্যা করা হয়। একটি মানুষের মনোভাব, তার চিন্তা-ভাবনার ধরণ কিংবা স্বভাব তার শরীরের বিভিন্ন রেখায়, জন্ম দাগ কিংবা তিল বা আঁচিল ইত্যাদির মাধ্যমে প্রতিফলিত হয়। আজ জেনে নেওয়া যাক, একটি পুরুষের হাতের গড়ন দেখে কি করে জানা যাবে নারীদের প্রতি তার মনোভাব

১. যেসব পুরুষের তর্জনীটি অন্যান্য আঙুলের চেয়ে লম্বা তারা সাধারণত ঝগড়ুটে প্রকৃতির হন। নারীদের প্রতি তাদের ব্যবহার হয় রূঢ় এবং হিংসাত্মক। এদের স্ত্রী বা সঙ্গিনীরা সাধারণত এদের শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের শিকার হন। যেসব পুরুষের আঙুলের ডগা স্ফীত তারা অত্যন্ত গোপনীয়তা-প্রিয় হন। বহু কথাই তারা তাদের স্ত্রী বা সঙ্গিনীর কাছ থেকে গোপন রাখেন।

২. যেসব পুরুষের হাতের তর্জনী ও অনামিকা অর্থাৎ প্রথম ও তৃতীয় আঙুলের দৈর্ঘ্য এক রকমের তাদের চরিত্রে বিশেষ কিছু গুণ থাকে যার জোরে অতি অল্প আয়াসে তারা নারীদের মন জয় করে নিতে পারেন। এরা নারীদের সঙ্গে খুবই বিনীত ও ভদ্রভাবে মেলামেশা করেন ও পরিকল্পিত ভাবে তাদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হয়ে ওঠেন। কিন্তু নারীদের কাছে যাওয়ার প্রকৃত উদ্দেশ্যটি এরা সুকৌশলে গোপন রাখেন।

৩. যাদের অনামিকা অর্থাৎ হাতের তৃতীয় আঙুলের দৈর্ঘ্য অন্যান্য আঙুলের চেয়ে বেশি, তারা সাধারণত উগ্র স্বভাবের হন। এদের দাম্পত্য জীবন বা প্রেম জীবন একেবারেই সুখের হয় না। এবং এদের স্ত্রী বা প্রেমিকারা কখনওই শান্তি পান না।

৪. যেসব পুরুষের আঙুলের গাঁটের উপরের অংশে ঘন পুরু লোম থাকে তাদের নারী-ভাগ্য অপেক্ষাকৃত খারাপ হয়। অনেক সময়েই উপযুক্ত সঙ্গিনী পাওয়ার জন্য অনেক বেশি বয়স পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয় তাঁদের।

৫. যেসব পুরুষের হাতের আঙুল সরু ও লম্বা তারা নারীদের বিষয়ে অত্যন্ত ভাগ্যবান। এরা সহজেই নিজেদের উপযুক্ত সঙ্গিনীকে খুঁজে পান এবং তার সঙ্গে সুখী জীবনযাপন করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *