Home / ত্বকের যত্ন / ত্বক উজ্জ্বল ফর্সা করতে ময়দার যাদুকরী প্রভাব! দেখুন

ত্বক উজ্জ্বল ফর্সা করতে ময়দার যাদুকরী প্রভাব! দেখুন

ময়দার রয়েছে অনেক গুণ। খুব সহজেই চটজলদি ময়দার সঙ্গে বেসন মিশিয়ে ত্বকের যত্ন নেওয়াই যায়। অথচ সেই সময়টা আমাদের হাতে নেই। নিজের জন্য একটু সময় বের করে নিন। আর ত্বকের যা যা সমস্যা রয়েছে ময়দা দিয়ে করে ফেলুন সব সমস্যার সমাধান। জেনে নেওয়া যাক ময়দার গুণাগুণ সম্পর্কে –

১) ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ায় –
ত্বকের উজ্জ্বলতা ফেরাতে ময়দা ব্যবহার করতেই পারেন। পার্লারে গিয়ে একগুচ্ছ টাকা খরচ না করে খুব সহজেই ময়দা দিয়ে ফেসপ্যাক বানিয়ে নিন। এক চামচ ময়দার সঙ্গে দু’চামচ বেসন মিশিয়ে নিন। এর পরে ময়দা ও বেসনের মধ্যে এক চামচ পাতিলেবুর রস ও এক চামচ দুধ মিশিয়ে প্যাকটি বানান। ১৫-২০ মিনিট মুখের মধ্যে লাগিয়ে রাখুন। শুকিয়ে গেলে জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

২) ফেসপ্যাক –
যে কোনো ত্বকে ময়দার ফেস-প্যাক ব্যবহার করা যেতেই পারে। দুই চামচ ময়দার সঙ্গে এক চামচ বেসন মেশান। আর এক চামচ হলুদ গুঁড়ো, এক চামচ মধু , এক চামচ লেবুর রস ও পাকা কলাদিয়ে প্যাকটি বানিয়ে নিন। ১০-১৫ মিনিট মুখে লাগিয়ে রাখুন। এরপরে জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

৩) তৈলাক্ত ত্বক –
অনেক মানুষের মুখের ত্বক খুব তৈলাক্ত হয়। ময়দা ব্যবহার করেই দেখুন। দেখবেন মুখের তৈলাক্ত ভাব এক নিমেষে চলে গেছে। দুই চামচ ময়দা, এক চামচ বেসন, এক চামচ লেবুর রস, এক চামচ গোলাপ জল, এক চামচ চন্দন গুঁড়ো দিয়ে প্যাকটি বানিয়ে নিন। ১৫-২০ মিনিট মুখে লাগিয়ে রাখুন। শুকিয়ে গেলে জল দিয়ে ধুয়ে নিন।

৪) মুখের ট্যান –
সূর্যের তাপ লেগে মুখের চামড়া পুড়ে গেছে। মুখের ট্যান তুলতেও সাহায্য করে ময়দা। একবার ব্যবহার করে দেখতে পারেন। দুই চামচ ময়দা, এক চামচ বেসন, দুই চামচ পাকা পেঁপের প্লাপ, এক চামচ কমলালেবুর রস দিয়ে প্যাকটি বানিয়ে নিন। এর পরে ১০-১৫ মিনিট মুখে লাগিয়ে রাখুন। শুকিয়ে গেলে জল দিয়ে মুখ ধুয়ে নিন।

৫) ব্রণ দূর করতে –
ঘরোয়া পদ্ধতিতে যদি ব্রণ দূর করতে চান খুব সহজেই বাড়িতে বসে ময়দা দিয়েই করতে পারেন সেই সমস্যার সমাধান। এক চামচ ময়দা, এক চামচ বেসন ও এক চামচ হলুদ গুঁড়ো মিশিয়ে প্যাকটি বানান। এর পরে মুখের যেখানে যেখানে ব্রণ রয়েছে সেই জায়গায় প্যাকটি লাগান। অন্তত ১০ মিনিট মুখে লাগিয়ে রাখুন। শুকিয়ে গেলে জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

তথ্যসূত্র: বিডি২৪লাইভ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *