Home / দাম্পত্য জীবন / স্বামী-স্ত্রী একসঙ্গে গোসল করার সুফল জানেন কি? জেনে নিন!

স্বামী-স্ত্রী একসঙ্গে গোসল করার সুফল জানেন কি? জেনে নিন!

সম্প্রতি একটি গবেষণায় একটি চাঞ্চল্য কিন্তু মজাদার তথ্য উঠে এসেছে। জানা গেছে, যে দম্পতি বা স্বামী স্ত্রী একসঙ্গে গোছল করেন তারা বেশিদিন ও সুস্বাস্থ্যের অধিকারি হয়ে বেঁচে থাকেন এবং তাদের সংসারে সুখ শান্তি বিরাজ করে। না এ কোনও হেয়ালি কথা নয়। এর পিছনে অনেকগুলো বৈজ্ঞানিক ও মানসিক কারণ রয়েছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, আপনার সঙ্গীর সঙ্গে এক সঙ্গে গোসল করলে সম্পর্ক মজবুত হয়, মানসিক ও শারীরিকভাবে আপনি সুস্থ থাকবেন।

একসঙ্গে গোসল করুন। একসঙ্গে গোসল করার পিছনে অনেক ইতিবাচক কারণ রয়েছে। যার জন্য আপনারও উচিত আপনার সঙ্গীর সঙ্গে সপ্তাহে একবার অন্তত একসঙ্গে গোসল করা। সেই কারণগুলো কী জেনে নিন।

ত্বকের সমস্যা : আপনার সঙ্গীর চোখে আগে পড়ে একসঙ্গে গোসল করার ফলে আপনার শরীরের সেই সব জায়গা নজর করতে পারেন যা আপনার চোখে যায় না এবং ঢাকা থাকায় অন্য কারোর নজর যাওয়াও সম্ভব নয়।। যেমন ঘাড়, পিঠ, নিতম্ব ইত্যাদি। যদি এই সব জায়গার চামড়ায় কোনও সমস্যা হয় তাহলে তা সবার আগে আপনার সঙ্গীর চোখে পড়ে। সেক্ষেত্রে প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শও প্রাথমিক স্তরেই নিতে পারবেন।

দুশ্চিন্তামুক্ত করে : আপনি যখন আপনার ভালবাসার মানুষটির সঙ্গে একসঙ্গে গোসল করেন, তখন শরীর স্পর্শ হবে এটা খুবই স্বাভাবিক। তখন মস্তিষ্ক শরীরকে সিগন্যাল দেয় চিন্তামুক্ত হওয়ার। ফলে শরীর এই সময় অনেক বেশী রিল্যাক্স হয়। যা অত্যন্ত প্রয়োজন স্বাস্থ্যকর জীবন-যাপনের জন্য।

আপনার শরীর সম্পর্কে আপনাকে আরও যতœবান করে : একসঙ্গে গোসল করার সবচেয়ে বড় সুফল হল, শরীরের যে সব জায়গায় আপনি নিজে স্ক্রাব করতে পারেন না বা সাবান লাগাতে পারেন না সেই জায়গায় আপনার সঙ্গী আপনার হয়ে এগুলো করে দিতে পারে। এরফলে ত্বক আরও স্বাস্থ্যকর হয়।

আত্মবিশ্বাস বাড়াতে সাহায্য করে : একটা সম্পর্কে দু’জনেরই আত্মবিশ্বাস থাকা অত্যন্ত প্রয়োজন। একসঙ্গে গোছল করে দুটি মানুষ আরও কাছে আসে। সম্পর্ক আরও মজবুত হয়, বিশ্বাস তৈরি হয়, এবং এই সম্পর্ক নিয়ে আপনার আত্মবিশ্বাসও ক্রমে বাড়তে থাকে।

হার্টের জন্য ভাল : হৃদযন্ত্রের সমস্যা আজকাল ঘরে ঘরে। এটি স্বাভাবিক বিষয়। আপনার সঙ্গীর সঙ্গে একসঙ্গে গোসল করাটা এক্ষেত্রে খুবই ফলপ্রসু। কারণ একসঙ্গে গোসল করলে, তা আপনার হৃৎস্পন্দর বৃদ্ধি করে এবং হৃৎপিন্ডকে আরও সহজ ও স্বাভাবিকভাবে কাজ করতে সাহায্য করে। এর ফলে যে কোন অসুখ থেকে আপনার হৃদয় সুরক্ষিত থাকে। হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনাও কমে।

শারীরিক মিলন আরও উন্নতমানের করে : শুধু শারীরিক মিলনই যে শরীরে শারীরিক হরমনোর ক্ষরণ করে তা নয়। শরীরের উন্মুক্ত অংশে অপর লিঙ্গের ব্যক্তির ত্বকের স্পর্শের জেরেও শরীরে ‘লাভ হরমোন’ মুক্ত হয়। যা আমাদের মনকে আনন্দ দেয় এবং শারীরিক মিলনকে আরও উন্নত করে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *