Home / ফিটনেস / কোমরের মেদ কমিয়ে স্লিম ও আকর্ষণীয় করার ঘরোয়া পদ্ধতি

কোমরের মেদ কমিয়ে স্লিম ও আকর্ষণীয় করার ঘরোয়া পদ্ধতি

আমরা প্রতিনিয়ত নায়িকা, মডেলদের স্লিম কোমর দেখি সিনেমা কিংবা সিরিয়ালে। আমাদের মধ্যেও অনেকের ইচ্ছে থাকে কোমর স্লিম, সুন্দর, আকর্ষণীয় করার। তবে সঠিক নিয়ম না জানাই আমরা বুঝতে পারিনা কিভাবে কোমর স্লিম করা যায়। আজকের আলোচনায় দেখে নেওয়া যাক স্লিম, সেক্সি, আকর্ষনীয় কোমর পেতে যা করতে হবে। দৈনন্দিন খাবার সুন্দর কোমরের প্রথম শর্ত শরীরে মেদ না জমে। আর মেদ না জমা না মেদ ঝরানোর জন্য যেসব খাবার খেতে পারেন।

অলিভ অয়েল: অন্যান্য তেলের মতো স্বাস্থ্যকর না হলেও ফ্যাটের পরিমাণ প্রায় নেই অলিভ অয়েলে। তাই কোমর মেদশূন্য রাখতে যত সম্ভব রান্নায় অলিভ অয়েল ব্যবহার করুন। গ্রিন টি: যদি সত্যিই সুন্দর কোমর পেতে চান তাহলে শরীর থেকে অতিরিক্ত টক্সিন দূর করতেই হবে। আর টক্সিন দূর করার সবচেয়ে ভাল উপায় ডায়েটে গ্রিন টি রাখা। এছাড়া গ্রিন টি’র মতোই ডিটক্স করতে সাহায্য করে অ্যাপল সিডার ভিনিগার। টমেটো: লেপটিন জাতীয় প্রোটিন ও প্রচুর অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট থাকায় টমেটো মেদ ঝরাতে সাহায্য করে।

তরমুজ: কলার মধ্যে যে পরিমাণ পটাশিয়াম থাকে, তার প্রায় দ্বিগুণ থাকে অর্ধেক তরমুজের মধ্যে। এর অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট, লো ক্যালরি শরীরে অতিরিক্ত ফ্লুইড জমতে দেয় না। চিনে বাদাম: দু’টো মিলের মাঝে একমুঠো চিনে বাদাম খিদে কমাতে সাহায্য করে। এর মধ্যে থাকা ওমেগা থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড, ভিটামিন ই ও ফাইবার মেদ জমতে দেয় না। সামুদ্রিক মাছ: সুন্দর কোমর পেতে সবচেয়ে প্রয়োজনীয় অ্যানিমাল প্রোটিন সামুদ্রিক মাছ। এতে অন্যান্য প্রোটিনের মতো মেদও জমে না, পুষ্টি জোগায়।

স্লিম ও আকর্ষণীয় কোমর পেতে ব্যায়াম
মাটিতে সোজা হয়ে শুয়ে পরুন। হাত ২টো কাঁধ বরাবর ছড়িয়ে দিন। এবার হাঁটু ভাজ করে পায়ের পাতার উপর ভর দিয়ে হিপ তুলুন আর নামান এইভাবে ১০ বার এর পর হিপ তুলে ২০ গুনুন। এই পুরোটা ১০-১৫ বার করবেন। উপুর হয়ে শুয়ে পরুন। ২ টো হাত মুখের থুতনির নিচে রাখুন। এবার ১টা করে পা হাটুঁ ভাজ করে পিছনের দিকে চাপ দিন দেখবেন হাঁটু যেন মাটি থেকে উঠে না যায়। একবার বাঁ পা আর একবার ডান পা এইভাবে ২০ বার। এবার এক সঙ্গে ২টো পা ২০ বার করুন। সামনের থেকে পিছনের দিকে বেশী চাপ দেবেন। এইভাবে পুরো সেট টা ৫-৬ বার করবেন।পা জোড়া করে সোজা হয়ে বসুন। ২টো হাত একসঙ্গে কাত হয়ে বাঁদিকে মাটি স্পর্শ করুন, এবার ডান দিকের মাটি স্পর্শ করুন। এইভাবে ২০ বার।

ঘরের কাজ
নিয়মিত যে কোনোভাবে শরীরচর্চা করলে অবশ্যই তার ফল পাওয়া যায়৷ আর তাই সুন্দর ফিগারের ক্ষেত্রেও এর ব্যতিক্রম হয় না৷ স্বাস্থ্যকর খাওয়া-দাওয়ার ব্যাপারে একটু সচেতনতা আর পাশাপশি কিছুটা হাঁটাহাটি বা বাড়ির কাজই করে দেবে যে কেউকে সুন্দর ফিগারের অধিকারী৷ ঘরের কাজগুলো যদি নিজেই নিয়ম করে ঠিকমতো করে ফেলা যায়, তাহলে কিন্তু দুটোই সম্ভব৷ অর্থাৎ বাড়ি-ঘর পরিষ্কারের সঙ্গে সঙ্গে তা একই সঙ্গে স্বাস্থ্যকরও হলো, আবার শরীরও সুন্দর হলো৷ বিশেষ করে মেঝে বা সিঁড়ি মুছতে গেলে স্বাভাবিকভাবেই পেটে প্রচণ্ড চাপ পড়ে, ফলে পেটের মেদ সহজেই কমে যায়৷ নিয়ম করে মেঝে মুছলে পেট মসৃণ হয় আর কোমরের আকারও হয় সুন্দর৷

দৈনন্দিন চলাফেরায় গুরুত্ব দিন
লিফট ব্যবহার না করে সিঁড়ি দিয়ে ওঠানামা করুন। দিনে অন্তত কয়েকবার সিঁড়ি ভাঙুন। এটি হিপস ও কোমরের শেপ সুন্দর করতে খুবই কার্যকর। সিঁড়ি ভাঙা না হলে গান ছেড়ে দিয়ে ইচ্ছামত নাচুন। দড়ি লাফ বা স্কিপিং খেলতে পারেন সুযোগ পেলেই। আপনার সম্পূর্ণ শরীরের মাসল টোন করার পাশপাশি এটি ওজন কমায় ও শরীরের সর্বত্রই কাজ করে আকর্ষনীয় ফিগার করে তোলে।

লাইফস্ট্যাইল পরিবর্তন
যত যাই করুন না কেন, অবশ্যই পর্যাপ্ত ঘুমাবেন ও বিশ্রাম নেবেন। বিশ্রামের অভাবে আমাদের শরীরের নানান জায়গায় বিচ্ছিরি মেদ জমতে থাকে। তবে বিশ্রাম নেয়া মানে দিনরাত বসে থাকা নয়, সেটাও খেয়াল রাখবেন। সেই সাথে পান করবেন প্রচুর পানি। মেদ কমাতে ও আকর্ষনীয় ফিগার করতে এর জুড়ি মেলা ভার। একই সাথে কার্বোহাইড্রেট জাতীয় খাবার কমিয়ে প্রোটিন বেশী খাওয়া শুরু করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *