Home / ত্বকের যত্ন / অল্প সময়ে সুন্দরি হতে চান? তাহলে ঘুমানোর আগে যে কাজগুলো করবেন

অল্প সময়ে সুন্দরি হতে চান? তাহলে ঘুমানোর আগে যে কাজগুলো করবেন

সুন্দরি হতে সবাই ব্যস্ত কিন্তু আপনি কি সঠিক নিয়ম মেয়ে রূপচর্চা করছেন? তাই ঘুম থেকে ওঠার পরে যেমন ত্বকের যত্ন নিতে হয়, তেমনি স্কিনকে আদ্র এবং সুন্দর রাখতে রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগেও কিছু নিয়ম মেনে চলা জরুরি। এমনটা করলেই দেখবেন অল্প দিনেই আপনার সৌন্দর্য নিয়ে বন্ধু মহলে চর্চা শুরু হয়ে যাবে। তাহলে অপেক্ষা কিসের, চলুন সন্ধান করা যাক সৌন্দর্যের সেই গুপ্ত চাবিকাঠিটির।

১. মুখ ধুতেই হবে: যতই আপনি ক্লান্ত থাকুন না কেন রাতে শুতে যাওয়ার আগে ভাল করে মুখ ধোওয়াটা মাস্ট! কারণ কি জানেন। সারা দিন দূষণের কারণে ত্বকের মারাত্মক ক্ষতি হয়। তাই আপনি যদি সেই ময়লা মখে নিয়েই শুতে চলে যান তাহলে ক্ষতির মাত্রা আরও বাড়তে শুরু করে। আর এমনটা হলে ত্বক ধীর ধীরে সৌন্দর্য হারিয়ে ফেলে। আপনি নিশ্চয় চান না আপনার ত্বকের অবস্থাও এমনটা হোক। তাহলে প্রতিদিন রাতে শুতে যাওয়ার আগে পছন্দের কোনও ফেসওয়াশ দিয়ে ভাল করে মুখটা ধুয়ে নিতে ভুলবেন না।

২. মেকআপ তুলে নেবেন: দিনের শেষে মেকআপটা অবশ্যই পরিষ্কার করে নেবেন। এমনটা না করলে মেকআপের মধ্যে থাকা নানা কেমিকাল সারা রাত ধরে ত্বকের ক্ষতি করার সুযোগ পেয়ে যাবে। তাই শুতে যাওয়ার আগে মেকআপ রিমুভার, নারকেল তেল অথবা অলিভ অয়েল দিয়ে ভাল করে মুখটা পরিষ্কার নেবেন।

৩. চুল বেঁধে শোবেন: চুল খুলে ঘুমতে গেলে চুলের ক্ষতি তো হয়ই, সেই সঙ্গে ত্বকের নানা রোগের প্রকোপও বৃদ্ধি পায়। আসলে খোলা চুল সারা রাত ধরে মুখের উপর আসতে থাকে। আর এমনটা হলে ত্বকের প্রদাহ দেখা দেয়, যা স্কিন ইনফেকশনের আশঙ্কা বাড়ায়। শুধু তাই নয় যারা খুশকির সমস্য়া ভুগছেন তারা যদি চুল খুলে শোন তাহলে সারা মাথায়, এমনকি হেয়ার লাইন পর্যন্ত খুশকি ছড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে। তাই রাতে ঘুমনোর আগে নরম একটা গার্ডার দিয়ে অবশ্যই চুলটা বেঁধে নেবেন।

৪. আই ক্রিম: আপনি কি ঘুমতে যাওয়ার আগে অনেকটা সময় টিভি দেখেন বা ল্য়াপটপে কাজ করেন? তাহলে অবশ্য়ই ঘুমনোর আগে চোখের তলায় ভাল করে আই ক্রিম লাগিয়ে নেবেন। এমনটা করলে ফোলা ফোলা চোখ আর ডার্ক সার্কেল নিয়ে ঘুম থেকে উঠতে হবে না।

৫. ময়েসচারাইজার লাগাতে ভুলবেন না: ঘুম থেকে উঠে এবং রাত্রে শুতে যাওয়ার আগে ময়েসচারাইজার লাগালে ত্বকের উপরিভাগে জমতে থাকা মৃত কোষ এবং ক্ষতিকর উপাদানগুলি সরে যায়, ফলে ত্বক উজ্জ্বল এবং নরম হতে শুরু করে। শুধু তাই নয়, ময়েসচারাইজার ত্বকের পি এইচ লেভেলকে স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য় করে। প্রসঙ্গত, ত্বকের চরিত্র অনুযায়ী ময়েসচারাইজার ব্য়বহার করাটা জরুরি। এমনটা না করলে ত্বকের ভাল হওয়ার থেকে ক্ষতি হয় বেশি।

৬. ঠোঁটের যত্ন নিন: যতক্ষণ না ফাটল ধোরছে, ততক্ষণ পর্যন্ত ঠোঁটের যত্ন নিতে ইচ্ছাই করে না আমাদের। কি তাই তো? এমন অভ্য়াস কিন্তু একেবারেই স্বাস্থ্য়কর নয়। কারণ ঠোঁট হল শরীরের খুবই স্বর্শকাতর একটি অংশ। তাই ঠিক মতো যদি এর দেখভাল করা না যায়, তাহলে কিন্তু মুখের সৌন্দর্য আনেকটাই কমে যাবে। তাহলে উপায়? বেশি কিছু করতে হবে না শুধু রাতে শুতে যাওয়ার আগে মনে করে ঠোঁটে লিপ বাম লাগিয়ে নেবেন। তাইলেই কেল্লাফতে!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *