Home / ত্বকের যত্ন / মেছতার দাগ থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়! আগে ও পরে করণীয়

মেছতার দাগ থেকে মুক্তি পাওয়ার উপায়! আগে ও পরে করণীয়

চেহারায় বয়সের ছাপ পড়ার প্রাথমিক লক্ষণই হলো মেছতা। এটি বংশগত সমস্যার কারণে হতে পারে। আবার অতিরিক্ত মেকআপ ব্যবহারের ফলেও মুখে মেছতা পড়তে পারে। বিশেষ করে যারা প্রতিদিন বাইরে বের হওয়ার সময় মেকআপ করেন, তাদের এই সমস্যাটি বেশি দেখা যায়। আবার যাদের চুল লালচে আর চোখের রং হালকা তাদের ত্বকে বেশি মেছতা পড়ে। এমনকি দু’বছরের পর থেকে যে কোনো বয়সীদের মুখে মেলানিন জমে মেছতা হতে পারে। মেছতা গ্রীষ্ককালে প্রকট আকার ধারণ করে। কারণ এ সময় প্রচণ্ড গরমে রোদে পুড়ে মেছতার রং গাঢ় হয়। আবার কখনও কখনও এর রং লালচে তামাটে কিংবা বাদামি হয়ে যায়। তখন এ অবস্থায় বাইরে বের হওয়ার আর কোনো জো থাকে না। এ সময় অনেকেই পড়ে যান বিব্রতকর পরিস্থিতিতে। কাজেই এ সমস্যা থেকে পরিত্রাণের উপায় জানা জরুরী। এক্ষেত্রে মেছতার আগে ও পরের করণীয় সম্পর্কে জেনে নিন-

মেছতায় আক্রান্ত হওয়ার আগে করণীয়:
মেছতায় আক্রান্ত হওয়ার আগেই এর প্রতিরোধ ব্যবস্থা গ্রহণ করা ভালো। সেক্ষেত্রে সময়মতো একটু যত্ন নিলেই মেছতা প্রতিরোধ করা সম্ভব হয়। তবে রোদ থেকে ত্বককে রক্ষা করতে পারলেই মেছতা থেকে অনেকাংশে রক্ষা পাওয়া যায়। এজন্য কয়েকটি পন্থা অবলম্বণ করুন-

১. বাইরে বের হওয়ার আগে পর্যাপ্ত পরিমাণ সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন। এক্ষেত্রে এসপিএফের মাত্রা যেন ৩০ হয়।

২. বাইরে বের হওয়ার সময় স্কার্ফ, ওড়না বা আঁচল মাথায় জড়িয়ে নিন। সম্ভব হলে চওড়া ঘেরের টুপি পরুন। ঘাড়-পিঠ ঢাকা, ফুলহাতা জামা পরুন। সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৪টার মধ্যবর্তী সময়ে রোদের মধ্যে কম বের হতে চেষ্টা করুন। বাইরে বের হলে সবসময় ছায়ায় থাকুন। সম্ভব হলে সবসময় ছাতা ব্যবহার করুন। রোদ থেকে বাঁচার জন্য শিশুদের সানস্ক্রিন ব্যবহারের অভ্যাস গড়ে তুলুন।

মেছতা থেকে মুক্তি পেতে হলে সবার আগে বেশি প্রয়োজন ধৈর্যের। এছাড়া মেছতা থেকে বাঁচাবে নিচের উপায়গুলো –

১. ত্বক ফর্সাকারী ক্রিম: বাজারে নানা ব্র্যান্ডের ত্বক ফর্সাকারী ক্রিম পাওয়া যায়। এগুলো নিয়মিত ব্যবহার করলে মেছতার দাগ ক্রমশ হালকা হয়ে যায়। তবে এসব ক্রিম ব্যবহারের পর রোদে বের না হওয়াই ভালো।

২. লেজার ট্রিটমেন্ট ও ক্রায়োসার্জারি: লেজার ট্রিটমেন্ট সহজ ও নিরাপদ। এতে মেছতার দাগ যেমন পুরোপুরি চলে যায়, তেমনি কোনো ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কাও থাকে না। তরল নাইট্রোজেন দিয়ে করা ছোটখাটো সার্জারির নাম ক্রায়োসার্জারি। তবে এতে মেছতার দাগ পুরোপুরি দূর হয় না।

৩. ফটোফেসিয়াল ও ফেসিয়াল : এটি অনেকটা লেজার ট্রিটমেন্টের মতোই। তবে এ পদ্ধতি আমাদের দেশে খুব একটা প্রচলিত হয়নি। পার্লারে নিয়মিত ফেসিয়াল করলেও মেছতার দাগ কমে যায়।

এগুলো ছাড়া ঘরোয়া উপায়েও মেছতা দূর করতে পারেন। এক্ষেত্রে জেনে নিন কিছু পদ্ধতি –

লেবু
ত্বককে উজ্জ্বল করতে, ত্বকের কালো দাগ দূর করতে লেবুর জুড়ি নেই। এটি ব্লিচের কাজ করে। তাজা লেবুর রস ত্বকে লাগিয়ে রাখুন ১৫ থেকে ২০ মিনিট। এটি প্রতিদিন অথবা সপ্তাহে একদিন ব্যবহার করুন। এক চা চামচ লেবুর রসের সঙ্গে এক চা চামচ টমেটোর রস মিশিয়ে এটি ত্বকে লাগিয়ে হালকাভাবে ম্যাসাজ করুন এবং ১৫ থেকে ২০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। এক মাস এটি করলে ত্বকের মেছতা দূর হবে।

টমেটো ও আলু
টমেটোর রস ভিটামিন সি সমৃদ্ধ হওয়ায় তা ত্বকের কালো দাগ দূর করে উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে। টমেটোর পাল্প ত্বকে ম্যাসাজ করে ১০ থেকে ১৫ মিনিট এবং ঠাণ্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এটি প্রতিদিন অথবা সপ্তাহে তিন- চার দিন ব্যবহার করলে ধীরে ধীরে মেছতা চলে যাবে। আলুর রস মেছতার দাগ দূর করতে সাহায্য করে। এটি চোখের চার পাশে জমে থাকা কালো দাগ (ডার্ক সার্কেল) দূর করতে সাহায্য করে।

মুলতানি মাটি
মুলতানি মাটি ত্বকের মরা কোষ পরিষ্কার করে এবং ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। গোলাপজল, সবুজ চা, শসার রস, লেবুর রস এবং পানি ও মুলতানি মাটির মিশ্রণটি তৈরি করে ত্বকে লাগিয়ে রাখুন। ১৫ থেকে ২০ মিনিট পর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এক চা চামচ টমেটোর রস এবং চন্দন গুঁড়া, দুই চা চামচ মুলতানি মাটি একসঙ্গে মিশিয়ে ত্বকে লাগিয়ে রাখুন ২০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। এটা সপ্তাহে দুই দিন ব্যবহার করতে পারেন।

অ্যালোভেরা
অ্যালোভেরা জেল ত্বকে লাগিয়ে রাখুন। সম্পূর্ণ জেল ত্বকে শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। এটি সপ্তাহে দু’বার ব্যবহার করতে পারেন। অ্যালোভেরা জেল দুই চা চামচ, এক চা চামচ লেবুর রস এবং চিনি একসঙ্গে মিশিয়ে হালকাভাবে ত্বকে ঘষুন। ১৫ মিনিট পর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দুই থেকে তিন দিন এটি ব্যবহার করুন।

স্ট্রবেরি
স্ট্রবেরি উচ্চমাত্রার ভিটামিন সি, হাইড্রোক্সি এসিড, স্যালিলিক এসিড, অ্যালিজিক এসিড সমৃদ্ধ। এটি ত্বকের মরা কোষ দূর করে, দাগ, একনেক এবং ত্বক ফাটা থেকে রক্ষা করে। দুই থেকে তিনটি স্ট্রবেরি চটকে নিন। দুই চা চামচ দই এবং মধু মিশিয়ে নিন। হালকাভাবে ত্বকে ম্যাসাজ করুন ১০ থেকে ১৫ মিনিট পর এটি পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *